আজ শনিবার , ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

রিফাত হত্যা রায় ৩০ সেপ্টেম্বর ! মিন্নির সাজা হবে কি? টাংগাইল সদরের (বুরো এনজিও) কর্মকর্তা খুন। মতলব উত্তরে আধুনিক প্রযুক্তিতে বীজ উৎপাদন সংরক্ষনে মাঠ দিবস অনুষ্টিত টাংগাইলে জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান লিটন কে কুপিয়ে হত্যা চেস্টা। টাংগাইলে চতুর্থ শ্রেণির (১০) এক শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যা। রাঙ্গাবালীতে বিয়ের প্রতিশ্রæতিতে প্রতারণার অভিযোগ, চারজনের বিরুদ্ধে মামলা হালুয়াঘাটে বিজিবি’র পিটুনিতে আহত-১ প্রশ্নবিদ্ধ টি.এইচ.ও ডা. সোহেলী শারমিন! কোটি টাকার দূর্ণীতির নেপথ্যে–? হালুয়াঘাটে নারী সোর্স সুমিসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজীর অভিযোগ বাউফলে এক ব্যক্তির চোখ উৎপাটন হালুয়াঘাটে সুমী’র অপকর্ম ফাঁস! প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ ২৪ ঘণ্টায় আরো ৪১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৮২৭ রূপগঞ্জ প্রেসক্লাবের স্বঘোষিত সভাপতির হুমকিতে ৫ সাংবাদিক এলাকাছাড়া করোনায় আরও ৩৬ জনের মৃত্যু মসজিদে এসি বিস্ফোরণে মৃত বেড়ে ২৮

হালুয়াঘাটে হিজড়ার প্রেম। বিয়ের আসর থেকে কলেজ শিক্ষার্থীকে নিয়ে লাপাত্তা

প্রকাশিতঃ ৪:৫৮ অপরাহ্ণ | জুন ২৭, ২০১৮ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ৩২৮ বার

ওমর ফারুক সুমন, হালুয়াঘাট (ময়মনসিংহ), বাংলাদেশঃ

হালুয়াঘাট উপজেলার ৫ নং গাজীরভিটা ইউনিয়নের বান্দরঘাটা গ্রামের বাবর আলীর সন্তান হিজড়া বানেছা আক্তার বিথী। গতকাল মঙ্গলবার সরেজমিনে হিজড়া বানেছার বাড়ি থেকে ঘুরে এসে জানা যায়, এক সময় তার পড়নে ছিলো মেয়েলি ড্রেস সেলোয়ার আর কামিজ। অন্যান্য সকল মেয়েদের মতই ছিলো তার চলাফেরা। মেয়েদের সাথে মিশতেন। তাদের সাথেই স্কুলে যেতেন। কথাও বলতেন মেয়েদের মতই। মেয়ে হয়েই হালুয়াঘাট শহীদ স্মৃতি ডিগ্রী কলেজ হইতে এইচ এস সি পাশ করেছেন। এরপর হঠাৎ পরিবর্তন। মেয়ে থেকে রুপান্তর হয়ে হন ছেলে। তারিখটা ছিলো ২০১৩ সালের ২৫ এপ্রিল। হরমোনজনিত পরিবর্তন হয়ে চেঞ্জ হয় বেশভূষার।  শরীরে আসে ছেলের রুপ। পত্রিকায় নতুন নাম জোনায়েদ সিদ্দিকী (শিশির) রেখে বিজ্ঞাপনও দেন। মেয়ের পোশাক বাদ দিয়ে পড়তে শুরু করেন শার্ট আর পেন্ট। তারপরেও এলাকার মানুষের অবিশ্বাস বানেছাকে (শিশিরকে) নিয়ে। মেয়ে থেকে ছেলে কেউ বিশ্বাস করতে চাচ্ছেননা। এরই মাঝে হিজড়া  বানেছা প্রতিবেশী ডাকিয়াপাড়া গ্রামের লাবনী(১৯) (ছদ্ধনাম) নামে এক কলেজ শিক্ষার্থীকে  ফুঁসলিয়ে গড়ে তুলে প্রেম। এলাকার কেউ জানতোনা সে খবর। লাবনির কোন জায়গা থেকে কেউ বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে আসলে হিজড়া বানেছা কৌশলে সে ঘর দেয় ভেঙ্গে। লাবনীও চুপি চুপি হিজড়ার প্রেমে পাগল। এরপর একপর্যায়ে অঘটন ঘটায় হিজড়া বানেছা ও লাবনী। ২০ জুন বুধবার লাবনীর বিয়ে ঠিকঠাক অন্য আরেক ছেলের সাথে। কাজীসাহেব এসেছেন বিয়ে পড়াতে। কাবিননামাসহ রেজেস্ট্রি প্রায় লিখা সম্পন্ন। কনের স্বাক্ষর শুধু বাকী। কাজী লাবনীর দাদাকে নিয়ে আসলেন কনের স্বাক্ষর নিতে। কিন্তু এর পূর্বেই বিয়ের আসর থেকেই হিজড়া বানেছার সাথে লাপাত্তা হয়ে যায় লাবনী। লাবনী পালিয়ে গিয়ে উঠে হিজড়া বানেছার বাড়ীতে। লাবনীর পিতা টের পেয়ে মেয়েকে ধরে নিয়ে আসেন। কিন্তু সেখান থেকে লাবনীকে ধরে নিয়ে আসলেও শেষ রক্ষা হয়নি। লাভনী পুনরায় মাঝরাতে চলে যান প্রেমিক বানেছার বাড়িতে।  সেখানে রাত্রিযাপন করার পর সকাল থেকেই লাপাত্তা। বানেছাও নেই।  নেই লাবনীও। এই ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে লাবনীর দাদা বলেন, আমরা যখন টের পেয়েছি যে, লাবনীকে নিয়ে বানেছা প্রেম খেলায় মেতে উঠেছে। তখন বানেছা (নতুন নাম শিশির) কে বলি, তুমার ছেলেত্বের ডাক্তারি সার্টিফিকেট দিতে হবে। যদি দিতে পারো তাহলে আমার নাতনীকে বিয়ে দিবো। কিন্তু কোন প্রমান সে দিতে পারেনি। লাবনীর পরিবার জানায়, তারা ইতিমধ্যে জানতে পেরেছেন যে, প্রেমিক যুগল বর্তমানে পালিয়ে এক সাথেই আছেন। তবে কোথায় আছেন তা কেউ জানেননা বলে এ প্রতিবেদককে নিশ্চিৎ করেছেন। (ছবি সংগৃহীত)

Shares