আজ শনিবার , ১৯শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৫ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

জনগনের সেবক হতে চাই- অধ্যক্ষ পিকু জনগনের সেবক হতে চাই- অধ্যক্ষ পিকু হালুয়াঘাটে আশার আলো’র নির্বাচন! কাঞ্চন সভাপতি, আলী হোসেন সম্পাদক ব্যক্তিগত কারণে আত্মগোপনে ছিলেন ত্ব-হা: ডিবি হালুয়াঘাটে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান উপলক্ষে প্রেস ব্রিফিং হালুয়াঘাটে বাসের চাপায় পিষ্ট হয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী নিহত একদিনে আরও ৬০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩৯৫৬ ময়মনসিংহে নিখোঁজ শিক্ষার্থীর লাশ পাওয়া গেল টয়লেটের ট্যাংকে বাউফলে ইউএনও’র হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ে বন্ধ ময়মনসিংহের ত্রিশালে সাংবাদিক এনামুল ফাউন্ডেশনের ইফতার ও দোয়া মাহফিল মা দিবসের শুভেচ্ছা ময়মনসিংহের এিশালে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি ও দীর্ঘায়ু কামনায় ইফতার হালুয়াঘাটে আরব আলী ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ৬ শত মানুষ পেল ঈদ উপহার হালুয়াঘাটে রাস্তার দাবিতে মানববন্ধন মর্ডান স্পোটিং ক্লাবের দোয়া ও ইফতার

কেড়ে নেয়া মাকে খুঁজছে অবুঝ শিশুটি

প্রকাশিতঃ ১০:৪৩ অপরাহ্ণ | জুন ২২, ২০১৮ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ১৯৮ বার

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃএকটি খুদে শিশু ফুপিয়ে ফুপিয়ে কাঁদছে। আটক মাকে খুঁজছে সে। তার সামনে দাঁড়ানো বিশাল অবয়বের এক লম্বা ব্যক্তি। স্যুট-টাই পরা কেতাদুরস্থ ব্যক্তিটির অনেক ক্ষমতা।

মেক্সিকো সীমান্ত পাড়ি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করা অবৈধ অভিবাসী শিশুদের পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন করেছেন তিনি। এই ব্যক্তিটি আর কেউ নন, স্বয়ং মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।-খবর গার্ডিয়ানের।

তিনি দুই বছর বয়সী হুন্ডুরান শিশুটির দিকে নির্বিকারভাবে তাকিয়ে আছেন। তার মুখে কোনো অভিব্যক্তি নেই। ছবিটির ক্যাপশনে লেখা-ওয়েলকাম টু আমেরিকা। অর্থাৎ যুক্তরাষ্ট্রে স্বাগত।

বিখ্যাত টাইম ম্যাগাজিনের চলতি সপ্তাহের প্রচ্ছদটি করতে শিশুটির ছবি নেয়া হয়েছে পুলিৎজার বিজয়ী আলোকচিত্রী জন মুরের একটি বেদনাদায়ক ছবি থেকে।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সবসময়ই বিখ্যাত টাইম ম্যাগাজিনের কাভার পেজের ছবি হওয়াকে পছন্দ করেন। টাইমের কভার হওয়াকে তিনি ফলাও করে প্রচার করে থাকেন।

কিন্তু এবারের ছবি তার পছন্দ হবে বলে মনে করছেন না বিশেষজ্ঞরা। মূলত ট্রাম্পের অভিবাসন নীতির প্রতিফলন ফুটে উঠেছে এ ছবিটিতে।

মেক্সিকো সীমান্তে আটক মাকে খুঁজছে আর কাঁদছে দুই বছর বয়সী শিশুটি। ছবি: সংগৃহীত

যেসব বাবা-মা মেক্সিকো সীমান্ত পাড়ি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে ঢুকেছেন, তাদের কাছ থেকে সন্তানদের বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। এতে করে বাবা-মা থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়া শিশুদের করুণ অবস্থা স্পষ্ট হয়েছে এ ছবিতে।

গার্ডিয়ানের সঙ্গে সাক্ষাৎকারে মুর বলেন, একজন আলোকচিত্রী হিসেবে বহু বছর ধরে এ ধরনের কাহিনীর ছবি তুলছি। সদ্য হাঁটতে শেখা একটি শিশুসহ আমি তিন সন্তানের বাবা। কাজেই এই ছবি তোলা ছিল আমার জন্য খুবই বেদনায়ক।

Shares