আজ বৃহস্পতিবার , ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

বাউফলে মাছের পোনা অবমুক্তকরণ বাউফল উপজেলা ও পৌর সেচ্ছাসেবক দলের আহব্বায়ক কমিটি ঘোষণা বাউফলে ইউএনও’র বিদায়ী সংবর্ধনা নালিতাবাড়ীতে জেলা শিক্ষা অফিসারের বিদ্যালয় পরিদর্শন বাউফলে বিএনপি’র ৪৩ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত বাউফলে ছেলের বিচার চেয়ে বাবা মায়ের সাংবাদিক সম্মেলন বাউফলে জাতীয় মৎস সপ্তাহ শুরু হালুয়াঘাটে বজ্রপাতে মৃত্যু! বাবার লাশের পাশে দেড় বছরের শিশু ‘নুসাইবা’ হালুয়াঘাটে নির্মাণের বছরেই বক্স কালভার্ট ধ্বস! বাউফলে বিএনপি’র চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া-মোনাজাত ভিক্ষের টাকা গণনা করছিলো ভিক্ষুক। ইমাম বাসের চাপায় মৃত্যু ঐ ভিক্ষুকের শোক দিবসে হালুয়াঘাটে বিজিবি’র ত্রাণ বিতরণ বাউফলে সফিউল বারী বাবু’র মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া-মোনাজাত করোনা টেস্ট করাতে অনিহা হালুয়াঘাটে করোনায় আক্তান্ত হয়ে ৯৬ বছরের বৃদ্ধের মৃত্যু। মোট মৃত্যু-৭

করোনায় লকডাউন মদের দোকান! যুবকের আত্মহত্যা!

প্রকাশিতঃ ৯:১৫ অপরাহ্ণ | মার্চ ২৭, ২০২০ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ১৬৩ বার

ভারতেজুড়ে চলছে লকডাউন। সামান্য কিছু জোগাড় করতে কাঠ-খড় পোড়াতে হচ্ছে। এমন অবস্থায় করোনার জেরে কেরালায় মৃত্যু! কিন্তু কোনো আক্রান্ত ব্যক্তির নন, বরং করোনার জেরে লকডাউনে রাজ্যে মদের দোকান বন্ধের নির্দেশে আত্মঘাতী এক যুবক। কুন্নাকুলমের বাসিন্দা সনোজ কুলাঙ্গারার (৩৮) ঝুলন্ত দেহ শুক্রবার তার ঘর থেকে উদ্ধার হয়। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, আত্মঘাতী হয়েছেন ওই যুবক।
কিন্তু কেন আত্মঘাতী হলেন ওই যুবক? কারণ খুঁজতে গিয়ে পুলিশ জানতে পারে, তিনি মদ্যপানে আসক্ত ছিলেন। রাজ্যজুড়ে সব মদের দোকান বন্ধ হয়ে যাওয়ার ফলে হতাশ হয়ে পড়েন। তার পরিবার জানিয়েছে, একে বাড়িতে বসে থাকার তায় মদের দোকান বন্ধ। সবমিলিয়ে অবসাদে ছিলেন ওই যুবক। মদ না পেয়ে গত দুদিন তার শরীর খারাপ হতে শুরু করে। ফলে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন তিনি। পুলিশ একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করেছে।
ঘরে বাইরে চাপের মুখে পড়ে বুধবারই রাজ্যের সমস্ত মদের দোকান বন্ধ থাকার নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন। রাজ্যের পর্যটন মন্ত্রী কাদাকমপল্লি সুরেন্দ্রণ জানিয়েছেন, রাজ্যজুড়ে মদের দোকানগুলো বন্ধ করে দেওয়ায় আরো চারজন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তিরুবনন্তপুরমের ওই বাসিন্দাদের একই অবস্থা হয়েছে। মনোবিদরা জানিয়েছেন, মদের দোকানগুলো বন্ধ করে দেওয়ায় রাজ্যের ১৬ লাখ এমন মদ্যপানে আসক্ত ব্যক্তি অসুস্থ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। করোনা আতঙ্কের মধ্যেই এত মানুষ এই কারণে অসুস্থ হয়ে পড়লে হাসপাতালে তিল ধারণের জায়গা থাকবে না

Shares