আজ সোমবার , ২১শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

জনগনের সেবক হতে চাই- অধ্যক্ষ পিকু জনগনের সেবক হতে চাই- অধ্যক্ষ পিকু হালুয়াঘাটে আশার আলো’র নির্বাচন! কাঞ্চন সভাপতি, আলী হোসেন সম্পাদক ব্যক্তিগত কারণে আত্মগোপনে ছিলেন ত্ব-হা: ডিবি হালুয়াঘাটে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান উপলক্ষে প্রেস ব্রিফিং হালুয়াঘাটে বাসের চাপায় পিষ্ট হয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী নিহত একদিনে আরও ৬০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩৯৫৬ ময়মনসিংহে নিখোঁজ শিক্ষার্থীর লাশ পাওয়া গেল টয়লেটের ট্যাংকে বাউফলে ইউএনও’র হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ে বন্ধ ময়মনসিংহের ত্রিশালে সাংবাদিক এনামুল ফাউন্ডেশনের ইফতার ও দোয়া মাহফিল মা দিবসের শুভেচ্ছা ময়মনসিংহের এিশালে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি ও দীর্ঘায়ু কামনায় ইফতার হালুয়াঘাটে আরব আলী ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ৬ শত মানুষ পেল ঈদ উপহার হালুয়াঘাটে রাস্তার দাবিতে মানববন্ধন মর্ডান স্পোটিং ক্লাবের দোয়া ও ইফতার

বাউফলে এক সুপারের বিরুদ্ধে মাদ্রাসার নামে জমি দখলের অভিযোগ

প্রকাশিতঃ ১১:১৯ অপরাহ্ণ | এপ্রিল ০৮, ২০১৯ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ২৫৪ বার

তোফাজ্জেল হোসেন,বাউফল(পটুয়াখালী)সংবাদদাতা: প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ও মাদ্রাসার নাম ব্যবহার করে জমি দখল করার উদ্দ্যোশে নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অফিস কক্ষের দরজা ও আলমিরা ভেঙ্গে ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে এক মাদ্রাসা সুপারের বিরুদ্ধে। ওই ব্যাক্তি হলেন পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার রহমতনগর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্র্রাসার সুপার আতিকুর রহমান। আজ সোমবার বেলা ১১ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
স্থানীয় ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, রামনগর গ্রামের আলী আকবর মুন্সি গংদের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে একই গ্রামের আমিনুল ইসলাম রেদওয়ান গংদের ৭৪ শতাংশ জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। কয়েকদিন পূর্বে ওই বিরোধপূর্ন জমি দখল করার উদ্দ্যেশে রহমতনগর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার নির্ধারিত জমি লিখে একটি সাইনবোর্ড লাগায় রেদওয়ানের ভাই ওই মাদ্রাসার সুপার আতিক। অথচ ওই জমি নিয়ে আদালতে মামলা চলছে। আদালতে ফয়সালা না হওয়া পর্যন্ত ওই জমি কোন পক্ষ ভোগ দখল করতে পারবে না আদালতের এমন নিষেধাজ্ঞাও রয়েছে। গতকাল সোমবার সকালে মুন্সি আলী আকবর ওই জমির সাইনবোর্ড ভেঙ্গে ফেলে দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ওই মাদ্রসার সভাপতি রেদওয়ানের নির্দেশে সুপার নিজেই নিজ প্রতিষ্ঠানের অফিস কক্ষের দরজা ও কাঠের আলমিরা ভেঙ্গে ফেলে ।
আলী আকবর মুন্সি বলেন, ক্রয় ও ওয়ারিশ সূত্রে ওই জমির মালিক আমরা। আমাদের এক ওয়ারিশের কাছ থেকে রেদওয়ান ৩৩ শতাংশ জমি ক্রয় করেন। অথচ মাদ্রাসার নাম দিয়ে তারা ভোগ দখল করার চষ্টা করছে ৭৪ শতাংশ জমি। এতে বাধা দিলে সুপার আমাদেরকে ফাঁসাতে নিজেই মাদ্রার আফিস কক্ষের দরজা ও আলমিরা ভেঙ্গে হয়রানি মুলক মামলা করার পায়তারা করছে। তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করেন সুপার আতিকুর রহমান বলেন, আলী আকবর মুন্সি নিজেই মাদ্রাসার অফিস কক্ষের দরজা ও জানালা ভেঙ্গেছে।
বাউফল থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।

Shares