আজ রবিবার , ১৪ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১লা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

এমপি মাহমুদুল হক সায়েমকে সি.আই.পি শামিমের সংবর্ধনা হালুয়াঘাটে ঈদে বাড়ি ফেরার পথে লাশ হল স্বামীসহ অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী হালুয়াঘাটের স্থলবন্দর দিয়ে ২৭টি পণ্যের আমদানী রপ্তানীর পরিকল্পনা-এমপি সায়েম হালুয়াঘাটে ২৭ হাজার দুস্থ অসহায় পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার ১৩ বছর পর পদত্যাগ করলেন ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হালুয়াঘাটে ফেইসবুক গ্রুপে কোরআন তেলাওয়াত ও ইসলামী সংগীত প্রতিযোগিতা। পুরস্কার বিতরণ ‘কৃষ্ণনগরের কৃষ্ণকেশীর ‘বেহিসেবি রঙ.. হিমাদ্রিশেখর সরকার হালুয়াঘাট থেকে ফুলপুর পর্যন্ত চার লেনের রাস্তা নির্মাণসহ সড়ানো হচ্ছে অস্থায়ী বাস কাউন্টার জনগণের অধিকার আদায় না হওয়া পর্যন্ত বিএনপি রাজপথে থাকবে-প্রিন্স ডামি নির্বাচন করে গণতন্ত্রকে আইসিইউতে পাঠিয়েছে আওয়ামী লীগ-প্রিন্স বাজারে পণ্যের অগ্নিমূল্যের তাপ তাদের গায়ে লাগেনা-প্রিন্স নালিতাবাড়ীতে প্রেসক্লাবের নির্বাচন, সভাপতি সোহেল সম্পাদক মনির গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে আন্দোলন অব্যাহত থাকবে-বিএনপি নেতা প্রিন্স হালুয়াঘাটে বিএনপি নেতা প্রিন্স’র লিফলেট বিতরণ ৯৮ দিন কারাভোগের পর নিজ এলাকায় বিএনপি নেতা প্রিন্সকে সংবর্ধনা

প্রতিমণ ধানে দুই কেজি ঢলতা

প্রকাশিতঃ ১:০০ অপরাহ্ণ | মে ০৯, ২০২৩ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ১২৮ বার

মোঃ দৌলত হোসেন নালিতাবাড়ী: শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলায় কৃষকদের উৎপাদিত ধান বাজারে বিক্রি করতে ‘ঢলতা’ নামে দুই মণ ধানে চার কেজি ধান ওজনে বেশি দিতে হয়। ফলে  প্রতি  ধান কাটার মৌসুমে বাজারে কৃষকদের ধান বিক্রি করতে এসে ওজনে ঠকতে হচ্ছে। এর প্রতিকার চেয়ে সম্প্রতি স্থানীয় কৃষকদের পক্ষ থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছে। নালিতাবাড়ী ‘কৃষক উন্নয়ন ফোরাম’ কৃষকদের পক্ষে এই স্মারকলিপি দেয়। সুত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে উপজেলায় ২৩ হাজার ৯৫ হেক্টর জমিতে বোরো ধান আবাদ করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই ধান কাটা শুরু হয়েছে। কেউ কেউ ধান বাজারে বিক্রিও করেছেন। সেই ধান বাজারে বিক্রি করতে এসে স্থানীয়  আড়তদাররা ৮০ কেজিতে দুই মণের স্থলে ঢলতা হিসেবে আরো চার কেজি ধান বেশি নিচ্ছেন।  কষ্টে অর্জিত ধান ওজনে বেশি নেওয়ায় কৃষকরা নিরুপায় হয়ে মেনে নিচ্ছেন। তবে এর প্রতিকার চেয়ে স্থানীয় প্রায় এক ১ হাজার ৫০০ কৃষকের স্বাক্ষরিত একটি স্মারকলিপি ইউএনওর কাছে জমা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া কৃষকদের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসক, ভোক্তা অধিকার ও কৃষি বিভাগসহ বিভিন্ন দফতরে এর অনুলিপি দেওয়া হয়েছে।কৃষকদের অভিযোগ, দুই মণ করে (৮০ কেজি) প্রতি বস্তা ধান আড়তে নেয়ার পর পরিমাপের সময় বস্তার বদলে একটি বস্তা দেয়ার কথা থাকলেও বস্তার পরিবর্তে এক কেজি ও তথাকথিত ‘ঢলতা’ নামে আরো তিন কেজি পাথরসহ মোট চুরাশি কেজি ধান কৃষকদের দিতে হয়। তখন কৃষকরা চক্ষু লজ্জায় এর প্রতিবাদ করতে সাহস পায় না। স্থানীয় আড়তদারদের সাথে প্রশাসনের কর্মকর্তারা বিষয়টি নিয়ে একটি সমাধানে আসা প্রয়োজন বলে স্থানীয় কৃষকরা মনে করেন।
উপজেলার জামিরাকান্দা গ্রামের কৃষক সেলিম মিয়া বলেন, এক একর জমি আবাদ করে ধান তুলতে প্রায় ৫৫ হাজার টাকা খরচ হইছে। এক একরে প্রায় ৬০ মণ ধান পাইছি। অহন বাজারে ধান বেঁচতে আইসাও বিপদে পড়ছি। প্রতি বস্তায় (৮০ কেজি) চার কেজি ধান বেশি দেওয়া লাগতাছে। ৭২০ টাকা মণ হিসেবে ধান বেইচা খরচ তুলাই কঠিন হইয়া পড়ছে। সরকার ধানের ওজন ঠিক কইরা দিলে কৃষকরা বাঁচতো
নালিতাবাড়ী বাজারের ধান চাল ব্যবসায়ী মেসার্স খালেদ এন্টার প্রাইজের সত্বাধিকারী আব্দুল বাতেন বলেন, কাঁচা ধান হওয়ায় চুরাশি কেজি (প্রতি দুই মনে) হিসেবে ধান কেনা হচ্ছে। কারণ এই ধান শুকালে ৪/৫ কেজি কমে যায়। তাই বাধ্য হয়েই ধান বেশি নিতে হয়।
এ ব্যাপারে নালিতাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) খৃষ্টফার হিমেল রিছিল বলেন, প্রতি দুই মণ ধানে চার কেজি ধান বেশি নেওয়ায় কৃষকদের পক্ষ থেকে স্মারকলিপি পেয়েছি। আশা করছি স্থানীয় ধান ব্যবসায়ীদের সাথে আলোচনা করে এর দ্রুত সমাধান করতে পারবো।

Shares