আজ বুধবার , ৩০শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

নালিতাবাড়ীতে ভ্রাম্যমাণ আদালতে বালু জব্ধ নালিতাবাড়ী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সমিতির কমিটি গঠন হালুয়াঘাটে নকল স্বর্ণ বিক্রি করায় এক প্রতারককে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ অসুস্থ পিতা-মাতার ভরসা চা বিক্রেতা বাক প্রতিবন্ধী ‘মনিষা’ নালিতাবাড়ীতে ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিলে ১৮ সদস্য বিশিষ্ট আংশিক কমিটি ঘোষণা হালুয়াঘাটে ৯০ পিচ ইয়াবাসহ আটক -০২ হালুয়াঘাটে নারী কৃষকদের জন্য কারিতাস’র আয়োজনে প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত নালিতাবাড়ী আ’লীগের সভাপতি মোস্তফা সম্পাদক ওয়াজ কুরুণী অবৈধ বালু উত্তোলন। নালিতাবাড়ীতে ১০ ড্রেজার ধ্বংস নালিতাবাড়ীতে নানা আয়োজনে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সপ্তাহ অনুষ্ঠিত নালিতাবাড়ীতে অপহরণ নাটক নালিতাবাড়ীতে খাদ্য বান্ধব কর্মসূচিতে ঘোষ গ্রহণের অভিযোগ ব্যর্থতা স্বীকার করে সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে-প্রিন্স হালুয়াঘাটে ভারতীয় মদসহ আটক-৩

ভারতে লুকানো হচ্ছে কোভিডে মৃতের সংখ্যা

প্রকাশিতঃ ৮:২৭ অপরাহ্ণ | এপ্রিল ২৫, ২০২১ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ২৬৯ বার

অনলাইন ডেস্কঃ ক্রমশ খারাপ হচ্ছে ভারতের কোভিড পরিস্থিতি। হাসপাতালগুলোতে আর রোগী ভর্তির জায়গা নেই, অক্সিজেনের মজুদ ফুরিয়ে আসছে, চিকিৎসার অভাবে মানুষ মারা যাচ্ছে। আবার মারা যাওয়ার পরেও সৎকারের জন্য লাইনে থাকতে হচ্ছে। এরইমধ্যে প্রমাণ পাওয়া গেছে যে, ভারতে কোভিডে মৃতের সংখ্যা সরকারি তথ্যের থেকেও অনেক বেশি।
ভারতে প্রতিদিনই শনাক্ত হচ্ছে ৩ লাখের বেশি মানুষ। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই সংখ্যা আসল সংক্রমণের তুলনায় অনেক কম। এখন অনেকেই সন্দেহ প্রকাশ করছেন ভারতে কোভিডে মৃতের আসল সংখ্যা নিয়েও। দেশটিতে কোভিডে মৃতের সংখ্যা ২ লাখ প্রায়।
প্রতিদিনই ২ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যুর খবর জানাচ্ছে সরকার। কিন্তু দেশটির মরদেহ সৎকারের স্থানগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে সেখানে আগুন আর বন্ধ হচ্ছে না। সরকার যে তথ্য দিচ্ছে তার থেকেও অনেক বেশি মানুষের সৎকার করা হচ্ছে।
নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশটির রাজনীতিবিদরা জনরোষের ভয়ে মৃতের সংখ্যা কমিয়ে বলছে। কিংবা হাসপাতালগুলো মৃতের সংখ্যা কম গণনা করছে। আবার অনেক ক্ষেত্রে পরিবারগুলোও কোভিডে মৃতের কথা লুকিয়ে রাখার চেষ্টা করছে। কারণ, ভারতে কোভিডে মৃত্যুকে কিছু ক্ষেত্রে লজ্জাজনক হিসেবে মনে করার প্রবণতা দেখা গেছে।
মিশিগান বিশ্ববিদ্যালয়ের মহামারি বিশেষজ্ঞ বর্বর মুখার্জি বলেন, ভারত সরকারের দেয়া তথ্যের কোনো ঠিক নেই। আমরা যতগুলো মডেলই তৈরি করেছি, তাতে দেখা গেছে মৃতের সংখ্যা ২ থেকে ৫ গুন বেশি। দেশটির চিতাগুলো এখন ২৪ ঘন্টাই জ্বলছে। ধোঁয়ায় ঢেকে যাচ্ছে আশেপাশের আকাশ। আশেপাশের মানুষেরা বলছেন, এরকম অবস্থা তারা কখনো দেখেননি।
ভারতের শহর ভোপালে ১৯৮০র দশকে গ্যাস লিক হয়ে হাজারো মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। তারা বলছেন, সেই ঘটনার পর এই প্রথম সেরকম হারে মরদেহ সৎকার করতে দেখছেন তারা। কিন্তু সরকারি তথ্য বলছে, গত ১৩ দিনে সেখানে মাত্র ৪১ জনের কোভিডে মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু নিউ ইয়র্ক টাইমসের অনুসন্ধানে জানা গেছে, এই একই সময়ে এক হাজারের বেশি মানুষকে দাহ করা হয়েছে সেখানে। ভোপালের কার্ডিওলোজিস্ট জি সি গৌতম জানান, প্রতিদিন মৃতের সংখ্যা বাড়ছে কিন্তু মৃতের সংখ্যা রেকর্ড করা হচ্ছে না। কর্তৃপক্ষ এটি প্রকাশ্যে আনছে না কারণ তারা মানুষকে উদ্বিগ্ন করতে চান না। একই অবস্থা দেখা গেছে, লক্ষেèৗ, মির্জাপুরসহ উত্তর প্রদেশের অনেক শহরে। গুজরাটেও মৃতের সংখ্যা কমিয়ে দেখানো হচ্ছে বলে জানিয়েছে নিউ ইয়র্ক টাইমস। গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্য বিশ্লেষণ করে জানা গেছে, সরকার যে মৃতের সংখ্যা বলছে তার থেকেও অন্তত ৫ গুন বেশি মানুষ কোভিডে মারা গেছেন।

Shares