আজ রবিবার , ১৪ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১লা বৈশাখ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

এমপি মাহমুদুল হক সায়েমকে সি.আই.পি শামিমের সংবর্ধনা হালুয়াঘাটে ঈদে বাড়ি ফেরার পথে লাশ হল স্বামীসহ অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী হালুয়াঘাটের স্থলবন্দর দিয়ে ২৭টি পণ্যের আমদানী রপ্তানীর পরিকল্পনা-এমপি সায়েম হালুয়াঘাটে ২৭ হাজার দুস্থ অসহায় পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার ১৩ বছর পর পদত্যাগ করলেন ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হালুয়াঘাটে ফেইসবুক গ্রুপে কোরআন তেলাওয়াত ও ইসলামী সংগীত প্রতিযোগিতা। পুরস্কার বিতরণ ‘কৃষ্ণনগরের কৃষ্ণকেশীর ‘বেহিসেবি রঙ.. হিমাদ্রিশেখর সরকার হালুয়াঘাট থেকে ফুলপুর পর্যন্ত চার লেনের রাস্তা নির্মাণসহ সড়ানো হচ্ছে অস্থায়ী বাস কাউন্টার জনগণের অধিকার আদায় না হওয়া পর্যন্ত বিএনপি রাজপথে থাকবে-প্রিন্স ডামি নির্বাচন করে গণতন্ত্রকে আইসিইউতে পাঠিয়েছে আওয়ামী লীগ-প্রিন্স বাজারে পণ্যের অগ্নিমূল্যের তাপ তাদের গায়ে লাগেনা-প্রিন্স নালিতাবাড়ীতে প্রেসক্লাবের নির্বাচন, সভাপতি সোহেল সম্পাদক মনির গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে আন্দোলন অব্যাহত থাকবে-বিএনপি নেতা প্রিন্স হালুয়াঘাটে বিএনপি নেতা প্রিন্স’র লিফলেট বিতরণ ৯৮ দিন কারাভোগের পর নিজ এলাকায় বিএনপি নেতা প্রিন্সকে সংবর্ধনা

হালুয়াঘাটে নির্মাণের বছরেই বক্স কালভার্ট ধ্বস!

প্রকাশিতঃ ৭:২৬ অপরাহ্ণ | আগস্ট ২২, ২০২১ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ৬৬৬ বার

ওমর ফারুক সুমনঃ নির্মাণের বছরেই ধ্বসে পড়েছে ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে চার লক্ষাধিক টাকার বক্স কালভার্ট। এতে দুর্ভোগে পড়েছে উত্তর সুদর্শনখিলা, বাউসী গ্রামসহ আশপাশের কয়েকটি গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ। ভুক্তভোগীরা বলছে, অনিয়ম আর দূর্ণীতির মাধ্যমে নিন্ম মানের কাজ করাই এ ধ্বসের মূল কারন। বক্স কালভার্ট পরিদর্শন শেষে স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায় এ তথ্য। সুত্রে জানা যায়, উপজেলার ১২নং স্বদেশী ইউনিয়নে বাউসী বিলের খালের উপর এলজিএসপি প্রকল্পের অর্থায়নে চার লক্ষ পচিশ হাজার টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয় বক্স কালভার্ট। বাস্তবায়নকাল ছিলো ২০২০-২১ অর্থ বছর। স্থানীয় ইউপি সদস্য এমদাদ হোসেনের ঠিকাদারিত্বে বাউসী খালের উপর নির্মিত হয় এই বক্স কালভার্টটি। স্থানীয়রা বলছে, রড ছাড়াই শুধুমাত্র নিন্ম মানের ইট, সিমেন্ট আর বালু দিয়েই কোনমতে নির্মাণ কাজ শেষ করে অর্থ হাতিয়ে নিয়ে যায় ঠিকাদার এমদাদ হোসেন। নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার কয়েক মাসের মধ্যেই বক্সকালভার্টটি ধ্বসে যায়। ফলে গত চার মাস যাবত জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পারাপার করতে হচ্ছে স্থানীয়দের। বাউসী গ্রামের আব্দুল জব্বার (৪৫), আঃ হক (৩৫), নাসির (৩২), আবুল হোসেন (৫৫) বলেন, বছর খানেক আগে ইউপি সদস্য এমদাদ হোসেন এলজিএসপি প্রকল্পের আওতায় চার লক্ষ ২৫ হাজার টাকার খরচ দেখিয়ে কালভার্টটি নির্মাণ করে দেয়। তাদের মতে বরাদ্ধের অর্ধেক টাকাও ব্যয় করেনি। অত্যন্ত নিন্ম মানের কাজ করায় নির্মাণের বছরেই এই বক্সকালভার্টটি ভেঙ্গে পড়েছে বলে মন্তব্য তাদের। উত্তর সুদর্শখিলা গ্রামের আব্দুল মন্নাফ (৩৮), সুদর্শনখিলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মাহাবুল (৩৫) বলেন, বক্স কালভার্টটি দিয়ে কয়েকটি বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ কয়েক গ্রামের মানুষ যাতায়াত করে। কয়েকমাস যাবত তা ভেঙ্গে যাওয়ায় যোগাযোগ করতে কষ্ট হচ্ছে তাদের। এছাড়া দূর্ঘটনাও ঘটছে মাঝে মাঝে। জরুরী ভিত্তিতে তা সংস্কার করা প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেন তারা। নির্মাণের বছরেই খালের উপর নির্মিত কালভার্টটি ভেঙ্গে পড়ার কারন হিসেবে অনিয়ম আর দূর্ণীতিকেই দায়ী করেছেন ভুক্তভোগী এলাকাবাসী। অনিয়মের বিষয়ে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ইউপি সদস্য এমদাদ হোসেন বলেন, বন্যার কারনে পানির অতিরিক্ত স্রোতে কালভার্টের নিচের মাটি সরে গিয়ে তা ধ্বসে গেছে। তা সংস্কার করা হবে বলে তিনি চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিহাদ হোসেন সিদ্দিকী ইরাদের সাথে কথা বলতে চাইলে বার বার ফোন করেও তাকে পাওয়া যায়নি। ফোন রিসিভ করেননি।

Shares