আজ বুধবার , ২৭শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

নালিতাবাড়ীতে শিক্ষক নেতার উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন নালিতাবাড়ীতে শিক্ষক নেতার উপর সন্ত্রাসী হামলার বিচারের দাবীতে আজ মানববন্ধন হালুয়াঘাটের শিমুলকুচি গ্রামে কামাল’র কুলখানি অনুষ্ঠিত হালুয়াঘাটে বৃদ্ধকে নির্যাতনের ঘটনায় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ হালুয়াঘাটের ট্রলি উল্টে দুই বন্দর শ্রমিকের মৃত্যু, আহত ৬ মাছ ধরার জালে ঢিল ছোড়ায় খুন হন শিশু শিক্ষার্থী সুমন হালুয়াঘাটে ১ম শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে কুপিয়ে খুন এমপি’র কাছে নালিশ করায় বৃদ্ধকে পিটিয়েছে চেয়ারম্যান হালুয়াঘাটে প্রতারিত শত শত কৃষক বাউফলে মাছের পোনা অবমুক্তকরণ বাউফল উপজেলা ও পৌর সেচ্ছাসেবক দলের আহব্বায়ক কমিটি ঘোষণা বাউফলে ইউএনও’র বিদায়ী সংবর্ধনা নালিতাবাড়ীতে জেলা শিক্ষা অফিসারের বিদ্যালয় পরিদর্শন বাউফলে বিএনপি’র ৪৩ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত বাউফলে ছেলের বিচার চেয়ে বাবা মায়ের সাংবাদিক সম্মেলন

হেলিকপ্টারে চড়ে বউ আসলো নয়া শশুরবাড়িতে। তা দেখতে গ্রামবাসীর ভিড়

প্রকাশিতঃ ১০:২০ অপরাহ্ণ | জুন ২২, ২০১৮ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ৩০৯ বার

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া পৌরসভার সৈয়দগাঁও গ্রামের ছেলে মোস্তফা হাসান উজ্জ্বল। শিক্ষা শেষে দেখাশোনা করছেন বাবার ইটখলার ব্যবসা। পাশাপাশি নিজেরও পাকুন্দিয়া পৌরসদরে নিজস্ব জায়গায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। তার বাবা হাজি শাফি উদ্দিন মেম্বার। পুরনো ব্যবসায়ী। পরিশ্রম করে তিল তিল করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে উন্নত করেছেন। নিজের পড়াশোনা না থাকা স্বত্ত্বেও ছেলে-মেয়েদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত করেছেন। চার ছেলের মধ্যে তৃতীয় ছেলে মোস্তফা হাসান উজ্জ্বলকে  বিয়ে করিয়েছেন।

পাত্রী ফারজানা আক্তার তৃপ্তি। কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ উপজেলার নিয়ামতপুর গ্রামের ব্যবসায়ী মো. আবদুল আজিজের একমাত্র মেয়ে তিনি। পাত্রীর পিতার ইচ্ছে তার মেয়েকে হেলিকপ্টারে করে বরের বাড়িতে নিতে হবে। এমন আবদারে না করলেন না বর ও তার পিতা।

অবশেষে বৃহস্পতিবার বিকালে ঢাকার মেঘনা এভিয়েশনের একটি হেলিকপ্টারে করে বউ আনার উদ্দেশ্যে নিয়ামতপুরে যান বর। স্থলেপথে যায় বিশাল মোটরসাইকেল ও মাইক্রোবাসের বহর। নিয়ামতপুর গ্রামে হেলিকপ্টার অবতরণ করলে লোকজনের ভিড় জমে যায়। হেলিকপ্টারে বর এসেছে জানতে পেরে আশপাশের গ্রামের শত শত লোক এক নজর দেখার জন্য। যা নিয়ামতপুর গ্রামের জন্য একটা স্মৃতি হয়ে থাকবে বলেও জানা গেছে।

হেলিকপ্টার থেকে ফুল দিয়ে অভ্যর্থনা দিয়ে স্পিডবোটে কনের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয় বরকে।

পরে বিকাল পাঁচটার দিকে বউ নিয়ে বাড়ি ফেরেন উজ্জ্বল। এখানেও ভিড় করে উৎসুক লোকজন। লোকজনের মুখে মুখে উজ্জ্বলের হেলিকপ্টারে করে বউ আনার খবর শোনা যাচ্ছে।

শুক্রবার বরের বাড়িতে বিয়ের অনুষ্ঠানে উপজেলার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ অংশগ্রহণ করেন এবং নবদম্পত্তির জন্য শুভ কামনা করেন।

যদিও এর আগে প্রথমবার পাকুন্দিয়ায় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম রেনুর মেয়ের বিয়েতে হেলিকপ্টারে করে বর এসেছিলেন। যা ব্যাপক আলোচিতও হয়েছিল। এরপরে আরও একজন বিয়েতে হেলিকপ্টার ব্যবহার করেছিল বলে জানা গেছে। ক্রমেই মানুষ শখের বশে বিয়ের অনুষ্ঠানে হেলিকপ্টারের ব্যবহার বাড়াচ্ছেন।

Shares