আজ বুধবার , ২২শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং | ৯ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

আনন্দ টিভির চেয়ারম্যানের মৃত্যুতে ময়মনসিংহে দোয়া মাহফিল বিশ্বাস- শিখা গুহ রায় হালুয়াঘাটে জিয়াউর রহমানের জন্মদিন উপলক্ষ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ আনন্দ টিভির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান আব্বাস উল্লাহ শিকদার আর নেই হালুয়াঘাটে মাকে খুন করা সেই বর্বর খুনী পুলিশের হাতে আটক! নালিতাবাড়ীতে মাধ্যমিক শিক্ষক সমবায় সমিতির নির্বাচনী প্রচারনা পুলিশের বিশেষ সেবা! জনতার দোরগোড়ায় হালুয়াঘাট থানার পুলিশ নামহীন- শিখা গুহ রায় কোন অজানা শহর–শিখা গুহ রায় খুব কাছে আবার দূরে- শিখা গুহ রায় মন- শিখা গুহ রায় কাল্পনিক- শিখা গুহ রায়। আকাশের দিকে চেয়ে দেখো-শিখা গুহ রায় নিঝুম রাতে- শিখা গুহ রায় ফেলে আসা অতীত- শিখা গুহ রায়

ব্যাংক থেকে দুই লাখ রুপি ছিনতাই করল বানর

প্রকাশিতঃ ৩:২৯ অপরাহ্ণ | মে ৩১, ২০১৮ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ২৩১ বার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বৃহস্পতিবার, মে ৩১, ২০১৮

ভারতের উত্তর প্রদেশে আগ্রার এক ব্যবসায়ী মেয়েকে নিয়ে সবে ব্যাংকে ঢুকতে যাচ্ছিলেন। মেয়ের হাতে ছিল একটা পলিথিন ব্যাগ, তার ভেতরে প্রায় দুই লাখ রুপি।

বিবিসি জানায়, সিঁড়ি বেয়ে দোতলায় উঠতেই মেয়ের হাত থেকে টাকা ভর্তি ব্যাগটি ছিনিয়ে নিয়ে দৌড় দিল চোর। কয়েক সেকেন্ডের বিহ্বলতা কাটিয়ে উঠে বাবা সাররাফ বিজয় বানসাল ও মেয়ে তাড়া করলেন চোরকে।

চেঁচামেচিতে ততক্ষণে বেরিয়ে এসেছেন ব্যাংকের নিরাপত্তা কর্মীরাও। কিন্তু চোর ততক্ষণে টাকার ব্যাগ নিয়ে ওপরের তলায় পৌঁছে গেছে।

তাকে তাড়া করা হচ্ছে বুঝে সে ব্যাগটি ছিঁড়ে ফেলে অনেকগুলো নোট ছড়িয়ে ছিটিয়ে দিল।

বানসাল একতলায় নেমে এসে সেগুলো কুড়িয়ে নিয়ে গুনে দেখলেন প্রায় ৬০.০০০ টাকা। অর্থাৎ ১,৪০,০০০ টাকা নিয়ে হাওয়া হয়েছে সেই লুটেরা।

পুলিশও খবর পেয়ে হাজির হল, কিন্তু তারা যে কোন আইনে এই লুটের ঘটনার মামলা দায়ের করবে, তা বুঝে উঠতে পারেনি। কারণ, ঐ ছিনতাইকারী তো আর মানুষ নয়। সে একটি বানর।

বিজয় বানসাল বলছেন, ‘গোটা ঘটনা এত দ্রুত ঘটে গেল, যে কিছুই করতে পারলাম না। সারাজীবনের সঞ্চয় ছিল ওই টাকাটা। এখন তো আমি সর্বস্বান্ত হয়ে গেলাম।’

দু’দিন আগে ঐ বানর লুটেরার হামলা হলেও স্থানীয় পুলিশ শুধু ঘটনাটি লিখে রেখেছে। কারণ এই লেজওয়ালা চোরের বিরুদ্ধে কোন ধারায় মামলা করা হবে, তা বুঝে উঠতে পারছে না তারা।

বানসাল জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তাদের কাছেও আর্জি জানিয়েছেন যদি কিছু ব্যবস্থা করা যায়।

উত্তর প্রদেশের বিভিন্ন অঞ্চলেই বানরের উৎপাত রয়েছে ভয়াবহ রকমের।

বিশেষ করে বারানসি বা মথুরা-বৃন্দাবনের মতো হিন্দু তীর্থক্ষেত্রগুলিতে হাজার হাজার বানর সেখানকার তীর্থযাত্রী আর নাগরিকদের জীবন একরকম অতিষ্ঠ করে তোলে।

২০১৪ সালে মথুরায় গিয়েছিলেন ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জী। সেখানকার বানরদের আবার বিশেষ নজর মানুষের চশমার ওপরে। প্রথমে নিরাপত্তার বাহিনী ভেবেছিল মুখার্জীকে চশমা না পড়তেই অনুরোধ করা হবে। পরে অবশ্য রাষ্ট্রপতির ওপরে বানর বাহিনীর সম্ভাব্য হামলা আটকাতে নিয়োগ করা হয়েছিল প্রশিক্ষিত হনুমান বাহিনী।

উত্তর প্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনের সময়ে মেরঠ অঞ্চলের প্রায় ২৫০০ ভোটযন্ত্র রাখা হয়েছিল এক পরিত্যক্ত কাপড় মিলের স্ট্রং-রুমে।

ঐ পরিত্যক্ত কাপড়-মিলে কয়েকশো বানরের বসবাস। তারা ভোট যন্ত্রগুলো নষ্ট করে দিতে পারে, এই আশঙ্কায় প্রশিক্ষিত হনুমানদের বিশেষভাবে পাহারা দেয়ার জন্য রাখা হয়েছিল সেখানে।

বারানসি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নির্বাচনী এলাকা। সেখানকার সব গ্রামকে ইন্টারনেটের মাধ্যমে যুক্ত করার পরিকল্পনা নিয়েছিল সরকার। কিন্তু ইন্টারনেট সংযোগের জন্য প্রয়োজনীয় ফাইবার অপটিক কেবল দাঁত দিয়ে কেটে দিচ্ছিল বানরের দল।

ভারতে ব্রজভূমি বলে পরিচিত মথুরা-বৃন্দাবনে বানরের দৌরাত্ম্য ঠেকাতে গণহারে তাদের ‘খোজা’ করা বা প্রজনন ক্ষমতা নষ্ট করে দেবার প্রস্তাব দিয়েছিলেন মথুরার এমপি ও বলিউডের সাবেক গ্ল্যামার-কুইন হেমা মালিনী।

তবে উত্তর প্রদেশের বাইরে ওডিশা রাজ্যে সম্প্রতি একটি মর্মান্তিক ঘটনা ঘটিয়েছে একটি বানর।

বাড়িতে ঢুকে একটি শিশুকে ‘ছিনতাই’ করে নিয়ে যায় একটি বানর। পরে ঐ শিশুটির মৃতদেহ পাওয়া গেছে একটি কুয়ার ভেতরে।

Shares
error: Content is protected !!