আজ বুধবার , ৩০শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

নালিতাবাড়ীতে ভ্রাম্যমাণ আদালতে বালু জব্ধ নালিতাবাড়ী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সমিতির কমিটি গঠন হালুয়াঘাটে নকল স্বর্ণ বিক্রি করায় এক প্রতারককে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ অসুস্থ পিতা-মাতার ভরসা চা বিক্রেতা বাক প্রতিবন্ধী ‘মনিষা’ নালিতাবাড়ীতে ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিলে ১৮ সদস্য বিশিষ্ট আংশিক কমিটি ঘোষণা হালুয়াঘাটে ৯০ পিচ ইয়াবাসহ আটক -০২ হালুয়াঘাটে নারী কৃষকদের জন্য কারিতাস’র আয়োজনে প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত নালিতাবাড়ী আ’লীগের সভাপতি মোস্তফা সম্পাদক ওয়াজ কুরুণী অবৈধ বালু উত্তোলন। নালিতাবাড়ীতে ১০ ড্রেজার ধ্বংস নালিতাবাড়ীতে নানা আয়োজনে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সপ্তাহ অনুষ্ঠিত নালিতাবাড়ীতে অপহরণ নাটক নালিতাবাড়ীতে খাদ্য বান্ধব কর্মসূচিতে ঘোষ গ্রহণের অভিযোগ ব্যর্থতা স্বীকার করে সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে-প্রিন্স হালুয়াঘাটে ভারতীয় মদসহ আটক-৩

নালিতাবাড়ীতে খাদ্য বান্ধব কর্মসূচিতে ঘোষ গ্রহণের অভিযোগ

প্রকাশিতঃ ৯:০১ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ০৬, ২০২২ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ৬৯ বার

মোঃ দৌলত হোসেন নালিতাবাড়ী শেরপুর সংবাদ দাতা। শেরপুরের নালিতাবাড়িতে অন্ধকারে রাখা হয়েছে শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উদ্যোগ খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর তালিকাভুক্তিতে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ তদন্তের প্রতিবেদন। রূপনারায়নকুড়া ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে এ অভিযোগের তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের শেষ সময়ের এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও কর্তৃপক্ষের ভূমিকা রহস্যজনক।
জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উদ্যোগ খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর আওতায় উপকারভোগীদের নাম যাচাই-বাছাই কাজ চলে কিছুদিন আগে। ওই সময় যাচাই-বাছাইয়ে পুনরায় নাম অন্তর্ভূক্তির জন্য আগেভাগেই পরিষদের সদস্যদের নিয়ে বৈঠক করেন রূপনারায়নকুড়া ইউপি চেয়ারম্যান মুঞ্জুর আল মামুন। পরবর্তীতে তারই নির্দেশে ইউপি সদস্য-সদস্যাগণ উপকারভোগীদের কাছ থেকে ‘অনলাইনে এন্ট্রি খরচ’ বাবদ এক হাজার করে টাকা দাবী করেন। দাবী অনুযায়ী বেশিরভাগ উপকারভোগীর কাছ থেকে ইউপি সদস্য-সদস্যাগণ এক হাজার করে টাকা আদায়ও করেন। কিন্তু নানা গড়মিলে কিছু উপকারভোগীর নাম বাদ পড়লে ঘুষ গ্রহণের বিষয়টি সামনে আসে। সরেজমিনে তদন্ত শেষে স্থানীয় ও জাতীয় কয়েকটি গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয় প্রতিবেদন। এ প্রতিবেদন প্রকাশের পর কোন কোন জনপ্রতিনিধি আত্মরক্ষায় ঘুষের টাকা ফেরতও দিয়েছেন। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা খাদ্যবান্ধব কর্মসূচী কমিটির সভাপতি হেলেনা পারভীন গত ২৫ অক্টোবর বিষয়টি তদন্তে তদন্ত কমিটি গঠন করেন। উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ও খাদ্যবান্ধব কর্মসূচী কমিটির সদস্য সচিব কেএম নাসিরকে সভাপতি, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম ও শিক্ষা কর্মকর্তা তৌফিকুল ইসলামকে সদস্য করা হয় কমিটিতে। সরেজমিনে তদন্ত করে ওই কমিটিকে ৩০ অক্টোবরের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলেরও নির্দেশ দেন তিনি। নির্দেশমতে ২৭ অক্টোবর ও ৩০ অক্টোবর দুইদিন সরেজমিন তদন্ত সম্পন্ন করে তদন্ত কমিটি।
কিন্তু এরপর থেকেই যেন সব গায়েব হয়ে যায়। তদন্ত প্রতিবেদনের অগ্রগতি ও এর আলোকে করণীয় সম্পর্কে একাধিকবার জানতে চাইলে তদন্ত কমিটির প্রধান কেএম নাসির অনুরোধ করে এ বিষয়ে কোনপ্রকার তথ্য দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তবে কমিটির অন্যরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, তদন্ত প্রতিবেদন নির্দিষ্ট তারিখেই সম্পন্ন করা হয়েছে এবং অভিযোগের সত্যতা মিলেছে।
প্রতিবেদনের বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হেলেনা পারভীনের কাছে বারবার একাধিক গণমাধ্যমকর্মী খোঁজ নিলেও তিনি কথা ঘুরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন।
এদিকে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দিষ্ট সময়ের এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও প্রতিবেদন দাখিল হয়েছে কি না বা হয়ে থাকলে কোন পর্যায়ে আছে তা অন্ধকারে রাখায় বিভিন্ন মহলে বিষয়টি প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে। এমতাবস্থায় দ্রুত ওই প্রতিবেদনের আলোকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী ভুক্তভোগী ও বিভিন্ন মহলের।

Shares