আজ শুক্রবার , ৩০শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

হালুয়াঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বিএনপি নেতা রুবেল’র অক্সিজেন সিলিন্ডার ও চিকিৎসা সামগ্রী প্রদান বাউফলে খাদ্য ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী পেল ২৬২ দুস্থ পরিবার হালুয়াঘাটে ১০৮০ টাকায় এম্ভুলেন্স সেবা। উদ্ভোধন করলেন এমপি জুয়েল আরেং হালুয়াঘাট ডোবা থেকে বৃদ্ধা নারীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার বাউফল প্রেসক্লাবের সভাপতিকে হুমকি বাউফলে ওয়ারেন্টভুক্ত আসামী গ্রেপ্তার হালুয়াঘাটে গত দুইদিনে তিন নারীর আত্মহত্যা! হালুয়াঘাটে পারিবারিক দ্বন্ধে দুই নারীর আত্মহত্যা! হালুয়াঘাটে পারিবারিক দ্বন্ধে দুই নারীর আত্মহত্যা করোনা সন্দেহে লাশ নেয়নি পরিবার, দাফন করল ছাত্রলীগ বাউফলে ইশা ছাত্র আন্দোলনের ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত প্রতিশ্রুতি রক্ষায় ভিক্ষুক সালেমুন নেছার বাড়িতে ইউ.এন.ও ভিক্ষুক সালেমুন নেছা’র আজও হয়নি পুনর্বাসন ময়মসিংরে ত্রিশালে জমে উঠছে কোরবানি পশুর হাট প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রণোদনার ঋণ পেল করোনায় ক্ষতিগ্রস্থ উদ্যোক্তারা

হালুয়াঘাটে হেফাজত নেতা মাওঃ মামুনুলকে নিয়ে তর্ক! শিক্ষকের চোখে ঘুষি

প্রকাশিতঃ ১১:৫২ অপরাহ্ণ | এপ্রিল ০৫, ২০২১ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ১১৮ বার

স্টাফ রিপোর্টারঃ হেফাজতে ইসলামের নেতা মাওঃ মামুনুল হককে নিয়ে বিতর্কে এক প্রধান শিক্ষকের চোখে ঘুষি মেরে মারাত্বক যখমের ঘটনা ঘটেছে। আজ সোমবার সন্ধা সাড়ে সাতটার দিকে ধারা বাজারের ইরান মার্কেটের সন্মুখে এ ঘটনা ঘটে। আহত শিক্ষকের নাম মাসুদুর রহমান (৪৮)। তিনি ধারা নিন্ম মাধ্যমিক বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। আহত মাসুদুর রহমান জানান, মাঝিয়াল কওমী মাদ্রাসার শিক্ষক মাওঃ মাহবুবুর রহমান আর তিনি ইরান মার্কেটে পাশাপাশি বসে হেফাজতে ইসলামের নেতা মাওঃ মামুনুল হককে নিয়ে কথা বলছিলেন। এ নিয়ে দু’জনের মাঝে তর্ক-বিতর্ক শুরুর এক পর্যায়ে প্রচন্ড ক্ষেপে যায় মাওঃ মাহবুবুর রহমান। এক পর্যায়ে চেয়ার থেকে উঠে সজোরে চোখে ঘুষি দিয়ে মারাত্বক যখম করলে সঙ্গীয়রা মাসুদুরকে হালুয়াঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনে ভর্তি করান। প্রাথমিক চিকিৎসা করান। তবে চোখের অবস্থা আশংকামুক্ত নয় বিধায় কর্তব্যরত চিকিৎসক ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণের পরামর্শ দেন। এ ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে মাওঃ মাহবুবুর রহমান বলেন, হেফাজতে ইসলামের নেতা মাওঃ মামুনুল হককে নিয়ে খারাপ ভাষায় কটুক্তি করেন মাসুদুর। পরে আমিও কঠিন ভাষায় এর জবাব দিলে আমাকে কুত্তার বাচ্চা বলে গালি দেয়। পরে আমি তাকে প্রহার করি। তিনি বলেন,আসলে মাসুদুরের সাথে আমার পুর্ব থেকে কোনো শত্রুটা ছিলোনা। আমরা একে অপরের আত্বীয়। সব সময় একই সাথেই আড্ডা দিয়ে থাকি। আসলে দু’জনের কথা কাটাকাটি নিয়েই মূলত এ অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা সৃষ্টি হয়েছে যা কাম্য ছিলোনা।

Shares