আজ রবিবার , ১৭ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১লা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

নালিতাবাড়ীতে শিক্ষক নেতার উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন নালিতাবাড়ীতে শিক্ষক নেতার উপর সন্ত্রাসী হামলার বিচারের দাবীতে আজ মানববন্ধন হালুয়াঘাটের শিমুলকুচি গ্রামে কামাল’র কুলখানি অনুষ্ঠিত হালুয়াঘাটে বৃদ্ধকে নির্যাতনের ঘটনায় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ হালুয়াঘাটের ট্রলি উল্টে দুই বন্দর শ্রমিকের মৃত্যু, আহত ৬ মাছ ধরার জালে ঢিল ছোড়ায় খুন হন শিশু শিক্ষার্থী সুমন হালুয়াঘাটে ১ম শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে কুপিয়ে খুন এমপি’র কাছে নালিশ করায় বৃদ্ধকে পিটিয়েছে চেয়ারম্যান হালুয়াঘাটে প্রতারিত শত শত কৃষক বাউফলে মাছের পোনা অবমুক্তকরণ বাউফল উপজেলা ও পৌর সেচ্ছাসেবক দলের আহব্বায়ক কমিটি ঘোষণা বাউফলে ইউএনও’র বিদায়ী সংবর্ধনা নালিতাবাড়ীতে জেলা শিক্ষা অফিসারের বিদ্যালয় পরিদর্শন বাউফলে বিএনপি’র ৪৩ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত বাউফলে ছেলের বিচার চেয়ে বাবা মায়ের সাংবাদিক সম্মেলন

হালুয়াঘাটে হেফাজত নেতা মাওঃ মামুনুলকে নিয়ে তর্ক! শিক্ষকের চোখে ঘুষি

প্রকাশিতঃ ১১:৫২ অপরাহ্ণ | এপ্রিল ০৫, ২০২১ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ১৫৮ বার

স্টাফ রিপোর্টারঃ হেফাজতে ইসলামের নেতা মাওঃ মামুনুল হককে নিয়ে বিতর্কে এক প্রধান শিক্ষকের চোখে ঘুষি মেরে মারাত্বক যখমের ঘটনা ঘটেছে। আজ সোমবার সন্ধা সাড়ে সাতটার দিকে ধারা বাজারের ইরান মার্কেটের সন্মুখে এ ঘটনা ঘটে। আহত শিক্ষকের নাম মাসুদুর রহমান (৪৮)। তিনি ধারা নিন্ম মাধ্যমিক বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। আহত মাসুদুর রহমান জানান, মাঝিয়াল কওমী মাদ্রাসার শিক্ষক মাওঃ মাহবুবুর রহমান আর তিনি ইরান মার্কেটে পাশাপাশি বসে হেফাজতে ইসলামের নেতা মাওঃ মামুনুল হককে নিয়ে কথা বলছিলেন। এ নিয়ে দু’জনের মাঝে তর্ক-বিতর্ক শুরুর এক পর্যায়ে প্রচন্ড ক্ষেপে যায় মাওঃ মাহবুবুর রহমান। এক পর্যায়ে চেয়ার থেকে উঠে সজোরে চোখে ঘুষি দিয়ে মারাত্বক যখম করলে সঙ্গীয়রা মাসুদুরকে হালুয়াঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনে ভর্তি করান। প্রাথমিক চিকিৎসা করান। তবে চোখের অবস্থা আশংকামুক্ত নয় বিধায় কর্তব্যরত চিকিৎসক ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণের পরামর্শ দেন। এ ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে মাওঃ মাহবুবুর রহমান বলেন, হেফাজতে ইসলামের নেতা মাওঃ মামুনুল হককে নিয়ে খারাপ ভাষায় কটুক্তি করেন মাসুদুর। পরে আমিও কঠিন ভাষায় এর জবাব দিলে আমাকে কুত্তার বাচ্চা বলে গালি দেয়। পরে আমি তাকে প্রহার করি। তিনি বলেন,আসলে মাসুদুরের সাথে আমার পুর্ব থেকে কোনো শত্রুটা ছিলোনা। আমরা একে অপরের আত্বীয়। সব সময় একই সাথেই আড্ডা দিয়ে থাকি। আসলে দু’জনের কথা কাটাকাটি নিয়েই মূলত এ অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা সৃষ্টি হয়েছে যা কাম্য ছিলোনা।

Shares