আজ সোমবার , ২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

গরীবের আশার বাতিঘর হাজী মোশারফ হালুয়াঘাটে পল্লী বিদ্যুতের খুঁটি পুঁততে গিয়ে মৃত্যু-১, আহত-১ জাতীয় ভাবে”স্বপ্নজয়ী মা” নির্বাচিত হলেন জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জের অবিরণ নেছা ৬১০৮ ভোটের ব্যবধানে হামিদ বিজয়ী। শেখ রাসেল ও মনোয়ারা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হালুয়াঘাট উপজেলা পরিষদ নির্বাচনঃ প্রবীণে প্রবীণে লড়াই এম্বুলেন্সে করে মাদক পাচারকালে ২৪০ বোতল ভারতীয় মদসহ একজন আটক এমপি মাহমুদুল হক সায়েমকে সি.আই.পি শামিমের সংবর্ধনা হালুয়াঘাটে ঈদে বাড়ি ফেরার পথে লাশ হল স্বামীসহ অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী হালুয়াঘাটের স্থলবন্দর দিয়ে ২৭টি পণ্যের আমদানী রপ্তানীর পরিকল্পনা-এমপি সায়েম হালুয়াঘাটে ২৭ হাজার দুস্থ অসহায় পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার ১৩ বছর পর পদত্যাগ করলেন ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হালুয়াঘাটে ফেইসবুক গ্রুপে কোরআন তেলাওয়াত ও ইসলামী সংগীত প্রতিযোগিতা। পুরস্কার বিতরণ ‘কৃষ্ণনগরের কৃষ্ণকেশীর ‘বেহিসেবি রঙ.. হিমাদ্রিশেখর সরকার হালুয়াঘাট থেকে ফুলপুর পর্যন্ত চার লেনের রাস্তা নির্মাণসহ সড়ানো হচ্ছে অস্থায়ী বাস কাউন্টার জনগণের অধিকার আদায় না হওয়া পর্যন্ত বিএনপি রাজপথে থাকবে-প্রিন্স

বেওয়ারিশ শিশুর মুত্যুতে স্তন্যদাত্রী পুলিশ মা’র কষ্টভরা কান্না

প্রকাশিতঃ ৯:২২ অপরাহ্ণ | জুন ১৮, ২০১৮ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ৩৮৮ বার

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ কর্নাটকের কুমারস্বামীর কথা মনে আছে? মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামী নন, পরিত্যক্ত সেই শিশুটি যাকে স্তন পান করিয়ে নতুন জীবন দিয়েছিলেন অর্চনা নামে বেঙ্গালুরু পুলিশের এক নারী কনস্টেবল। জুন মাসের প্রথম সপ্তাহেই নিজে সদ্য মা হওয়া সেই পুলিশ সদস্যর কথা প্রকাশিত হয়। কিন্তু ‘নতুন মা’র স্নেহছায়ায় ১৫ দিনও কাটল না শিশুটির। মঙ্গলবার মৃত্যু হয় শিশুটির।

ডাস্টবিন থেকে কুড়িয়ে পাওয়া শিশুপুত্রটির মৃত্যুর খবরে ভেঙে পড়েছেন তার স্তন্যদায়ী মা অর্চনা। মঙ্গলবার বেঙ্গালুরুর জয়ানগরের সিদ্দাপুরায় ইন্ধিরা গান্ধী ইনস্টিটিউট অফ চাইল্ড হেল্থ হসপিটালে মৃত্যু হয় শিশুটির। তারপর থেকেই কান্না আর থামছে না অর্চনার। নিজের সন্তানের মতোই কুড়িয়ে পাওয়া ছেলের শোকে ভেঙে পড়েছেন তিনি। শিশুটির মাথার ভেতরে একাধিক আঘাত ছিল, শরীরে সংক্রমণও ছিল তার।

বেঙ্গালুরুর ইলেকট্রনিকস সিটি পুলিশের তত্ত্বাবধানে থাকা শিশুটির নাম রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর নামে পুলিশই কুমারস্বামী দিয়েছিল। তার বাবা-মার খোঁজ চালাচ্ছে পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে এফআইআর-ও দায়ের করা হয়েছে। কিন্তু যে এলাকায় শিশুটিকে ফেলে যাওয়া হয়, সেখানে কোনো সিসিটিভি না থাকায় খুঁজে পেতে সমস্যা হচ্ছে।
সূত্র : এইসময়

Shares