আজ সোমবার , ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

আশুলিয়া প্রেসক্লাব চত্ত্বরে পরপর দুটি ককটেল বিস্ফোরণ নতুন ভবনের ডিজাইন পরিবর্তন করলে রক্ষা পেতে পারে খেলার মাঠ হালুয়াঘাটে কৃষকদের মাঝে বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নেতার বীজ ও সার বিতরণ হালুয়াঘাটে দ্বিতীয় দফায় পাহাড়ী ঢলে ১৪ গ্রাম প্লাবিত ভোট গণনার কারচুপির অভিযোগের মধ্য দিয়ে অগ্রযাত্রার নির্বাচন সম্পন্ন বরগুনার আমতলীতে নিখোঁজের একদিন পরে যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার তারাকান্দায় তক্ষকসহ আটক ৪ জন ভালুকায় সাংবাদিক নিগ্রহের বিচার দাবিতে মানববন্ধন রিফাত হত্যা রায় ৩০ সেপ্টেম্বর ! মিন্নির সাজা হবে কি? টাংগাইল সদরের (বুরো এনজিও) কর্মকর্তা খুন। মতলব উত্তরে আধুনিক প্রযুক্তিতে বীজ উৎপাদন সংরক্ষনে মাঠ দিবস অনুষ্টিত টাংগাইলে জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান লিটন কে কুপিয়ে হত্যা চেস্টা। টাংগাইলে চতুর্থ শ্রেণির (১০) এক শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যা। রাঙ্গাবালীতে বিয়ের প্রতিশ্রæতিতে প্রতারণার অভিযোগ, চারজনের বিরুদ্ধে মামলা হালুয়াঘাটে বিজিবি’র পিটুনিতে আহত-১

বরগুনায় দুই গ্রুপের পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিতঃ ৫:৩৩ অপরাহ্ণ | আগস্ট ৩০, ২০২০ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ১৯ বার

জুলহাস বরগুনা প্রতিনিধিঃ বরগুনার আমতলীতে সম্প্রতি সময়ে ঘটে যাওয়া উপজেলা চেয়্যারময়ানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যপ্রনেদিত এবং ষড়যন্ত্রমূলক, এমনটা অভিযোগ করে সংবাদ সম্মেলন করেছে আমতলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গোলাম সারোয়ার ফোরকান। রবিবার (৩০ আগস্ট) বরগুনা প্রেসক্লাবে বেলা এগারোটায়, অন্য গ্রুপ সারেবারোটায়। ও বরগুনা সাংবাদিক ইউনিয়নে বারোটায়, অন্য গ্রুপ আরাইটার দিকে সম্মেলন কক্ষে দুই গ্রুপের এই দুই স্থানে সংবাদ সম্মেলন করেছে। প্রথম গ্রুপ আমতলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গোলাম সারোয়ার ফোরকান, অনাস্থা প্রস্তাবের বিরুদ্ধে। দ্বিতীয় গ্রুপ অনাস্থা প্রস্তাবকারীরা।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত অভিযোগে আমতলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গোলাম সারোয়ার ফোরকান বলেন, সম্প্রতি আমাকে আমতলী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদ থেকে কতগুলা ভুয়া,মনগড়া, অসত্য ও কাল্পনিক অভিযোগ এনে আমার বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব দিয়েছেন কতিপয় জনপ্রতিনিধি। আমি বলতে চাই, আমার বিরুদ্ধে যেসব অভিযােগ আনা হয়েছে তার একটির ও বিন্দুমাত্র সত্যতা নাই। যদি সত্য হতাে তাহলে এই কথিত অনাস্থা প্রস্তাব আনার আগে ওইসকল জনতিনিধিরা মৌখিকভাবে কিংবা আপনাদের মাধ্যমে গনমাধ্যমে আমার বিরুদ্ধে এসবের স্বপক্ষে তথ্য-প্রমান দিয়ে অন্তত কিছু অভিযােগ তুলতেন। এমনকি তারা উপজেলা পরিষদের মাসিক সমন্বয় সভা বয়কট-বর্জন করতে পারতেন।কিন্তু এধরনের কোনাে অভিযােগ ছিল না বলে তারা এটা করার সুযােগ পাননি । এখন হঠাৎ করে মনগড়া কিছু অভিযোগ তুলে তারা আমার বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব এনছেন। এটা সম্পূর্ন উদ্দেশ্যমূলক।
তিনি আরও বলেন, নিশ্চয়ই জানেন যে আমি জনগনের ভােটে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছি। আমি বরগুনা জেলা আওয়ামীলীগের একজন সদস্য। দলের দুর্দিনের একজন নিবেদিত প্রান কর্মী। আমার দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে কোনাে অসত্যতার কালিমা নেই। এজন্য ২০০১ সালে আজকের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ছেড়ে দেওয়া তৎকালীন বরগুনা-৩ আসনে উপ- নির্বাচনে আমাকে দলীয় মনােনয়ন দেওয়া হয়েছিল। ভােট গ্রহন শুরু হওয়ার কয়েক ঘন্টার মধ্যে দলীয়ভাবে ওই নির্বাচনে তৎকালীন ক্ষমতাসীন বিএনপির ব্যাপক অনিয়মের কারনে ভােট বর্জন করার পরও আমতলী-তালতলীর জনগন আমাকে ৩৮ হাজার ভােট দিয়েছিল। এজন্য আমার সব সময় জনগনের প্রতি আস্থা ছিল এখনও তা অবিচল আছে।
অনাস্থা প্রদানকারীরা বিএনপি, জামাতপন্থী ও অনুপ্রবেশকারী দাবী করে গোলাম সারোয়ার ফোরকান আরোও বলেন, আপনারা নিশ্চই এই অনাস্থা প্রদানকারী চক্রের রাজনৈতিক পরিচয় সম্পর্কে অবহিত আছেন। এদের মধ্যে ২০০২ সালের ২৪ই মে আমতলী উপজেলা বিএনপি অনুমােদিত কমিটিতে বর্তমান মেয়র মতিয়ার রহমান ৪৪নং সদস্য, মজিবর রহমান কোষাধ্যক্ষ, আক্তারুজ্জামান বাদল খান ৪৫ নং সদস্য, মােঃ হারুন অর রশিদ হাওলাদার সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও আঠারগাছিয়া ইউনিয়ন বিএনপির সাধারন সম্পাদক, মতিয়ার রহমান ও মজিবর এর বােন ফিরোজা বেগম মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা, ভাইগ্না আবুল কালাম আজাদ ২৮নং ক্রমিকে স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। তারা আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে অনুপ্রবেশ করেন। দলে অনুপ্রবেশ করেই অন্য অনুপ্রবেশকারীদের সঙ্গে মিলে পুরানাে ও ত্যাগী নেতা-কর্মীদের কোনঠাসা করে রাখে, এমনকি উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগ
এর সভানেত্রী পদে নির্বাচিত করেন মতিয়ার রহমান এর স্ত্রী নুসরাত জাহান লিমুকে।
তারা দলীয় নেতৃত্বকে নিজেদের আয়ত্বে নিয়ে যথেচ্ছা লুটপাঠ করে নিজেদের অন্যায় পথকে নির্বিঘ্ন করার অপচেষ্টায় লিপ্ত আছেন। সেই চেষ্টার অংশ হিসেবেই এখন তারা একত্র হয়ে আমার বিরুদ্ধে মনগড়া ও কাল্পনিক অভিযােগ তুলে অনাস্থা প্রস্তাব দেওয়ার মতাে জগন্য নাটকের আশ্রয় করেছেন।
আমতলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গোলাম সারোয়ার ফোরকান আরোও বলেন, আমতলীতে আওয়ামীলীগের রাজনীতি আজ অনুপ্রবেশকারী, লুটেরা, সুযােগ সন্ধানের করালগ্রাসে। তারা আমতলী উপজেলায় আওয়ামীলীগের রাজনীতির গৌরবময় ইতিহাস, ঐতিহ্যকে ভুলুণ্ঠিত করে এক অসুস্থ্য লুটপাটের রাজনীতি প্রতিষ্ঠা করতে অপতৎপরতা চালাচ্ছে। এজন্য সুযােগ সন্ধানী, অনুপ্রবেশকারীরা নানা রকম ষড়যন্ত্রে লিপ্ত আছেন। আমার বিরুদ্ধে আনীত অভিযােগগুলো আপনাদের সহযোগিতায় আইনগতভাবে মােকাবেলা করতে চাই।
এ ব্যাপারে আমি আমার প্রাণের চেয়েও প্রিয় সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ এর উপজেলা, জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করছি।এসময় উপস্থিত ছিলেন, বরগুনা জেলার সকল উপজেলার উপজেলা চেয়ারম্যান গন, বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ সহ অনেক।
এদিকে আমতলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গোলাম সারোয়ার ফোরকানের সংবাদ সম্মেলন শেষ হওয়ার পরপরই দুপুর আরাইটার দিকে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করে অনাস্থা প্রস্তাবকারীরা।
আমতলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গোলাম সারোয়ার ফোরকানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব প্রদানকারীদের পক্ষে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন আমতলীর গুলিশাখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম।
এ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম বলেন, গোলাম সারোয়ার ফোরকান আমতলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর আইন লঙ্গন করে তার ইচ্ছামত খামখেয়ালী ভাবে প্রভাব খাটিয়ে উপজেলা পরিষদের কাজ পরিচালনা করছেন।
এছাড়া সকলের পক্ষে তিনি ১০দফা দাবী জানান। এসময় আরোও উপস্থিত ছিলেন, আমতলী সদর ইউপি চেয়্যারম্যান মোতাহার মৃধা, অন্যান্য ইউপি সদস্য পৌরসভার কাউন্সিলর সহ আরো অনেক।

Shares