আজ বৃহস্পতিবার , ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

বাউফলে ইউপি চেয়ারম্যানের ওপর হামলাকারীদের গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবি হালুয়াঘাটে ঝরে পড়া শিশুরা পাবে শিক্ষার সুযোগ। আসছে শিক্ষক নিয়োগও হালুয়াঘাটে স্বামীর আত্নহত্যা দেখে স্ত্রীও বিষ খায়! দুজনেরই মৃত্যু হালুয়াঘাটে স্বামী-স্ত্রীর আত্নহত্যা রাহেলা হযরত মডেল স্কুলে প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত ত্রিশাল অনলাইন প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে ভাষা শহীদদের স্মরণে শ্রদ্ধাঞ্জলি ভাষা শহীদদের প্রতি কংশ টিভির পরিবার ও গণমাধ্যম কর্মীদের শ্রদ্ধাঞ্জলী ফুটবল ফাইনাল টুর্নামেন্টে বিজয়ী মধুপুর একাদশ স্পোটিং ক্লাব ২৮ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়লো ময়মনসিংহ জেলার শ্রেষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসার ত্রিশালের মোস্তাফিজুর রহমান হালুয়াঘাটে পিকনিকের বাস উল্টে আহত-৮ ময়মনসিংহের ত্রিশালে করোনা টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধন করোনাঃ হালুয়াঘাটে ভ্যাকসিন প্রদান শুরু, ১৩৬ জনের রেজিষ্ট্রেশন সম্পন্ন হালুয়াঘাটে করোনার প্রথম টিকা নিলেন ইউ.এন.ও রেজাউল করিম বাউফলে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল

চট্টগ্রামে মা-ছেলেকে গলা কেটে হত্যা

প্রকাশিতঃ ৮:২৪ অপরাহ্ণ | আগস্ট ২৬, ২০২০ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ৫৬ বার

অনলাইন ডেস্কঃ চট্টগ্রাম মহানগরের চান্দগাঁও থানার পুরাতন চান্দগাঁও এলাকার রমজান আলী সেরেস্তাদারের বাড়িতে ভাড়া বাসায় মা ও ছেলেকে গলা কেটে হত্যার ঘটনা ঘটেছে।
খবর পেয়ে পুলিশ সোমবার দিনগত রাত ১০টার দিকে তাদের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে। নিহতদের নাম গুলনাহার বেগম (৩৩) ও তার ছেলে রিফাত (৯) বলে জানিয়েছেন চান্দগাঁও থানার ওসি আতাউর রহমান খন্দকার।
তিনি জানান, নিহত মা ও ছেলের গলায় রক্তাক্ত ক্ষত আছে। তাদের হত্যা করা হয়েছে। তবে কারা এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে সেটা এখনো জানা যায়নি। তদন্ত চলছে। তবে খুনের শিকার গুলনাহারের কিশোরী কন্যা ময়ূরী এই হত্যাকান্ডের জন্য তার মায়ের পাতানো ভাই জনৈক ফারুককে দায়ী করছেন।
ময়ূরী জানান, বহদ্দারহাটের সিরাজের ছেলে ফারুকের সাথে তাদের পারিবারিক সম্পর্ক ছিল। ফারুকের সাথে গুলনাহার বেগমের পাতানো ভাই-বোনের সম্পর্ক ছিল।
পেশায় ওয়েল্ডিং মিস্ত্রি ফারুক অবসর সময়ে গুলনাহারের বানানো নাস্তা বিক্রি করতো। লকডাউনের সময়েই একইভাবে বিরিয়ানি বিক্রি করছিল ফারুক। ফারুক বিভিন্ন সময়ে টাকার লেনদেন নিয়ে গুলনাহারকে হত্যার হুমকি দিতো।
স্থানীয়রা জানান, গুলনাহারের বাড়ি নোয়াখালীতে। তার স্বামী গৃহকর্মী হিসেবে অন্যত্র কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করেন। তিনি তাদের সাথে থাকেন না। ভাড়া বাসায় এক ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়ে বসবাস করতেন গুলনাহার বেগম। প্রতিদিনের মতো গোল নাহারের মেয়ে সকালে গার্মেন্টে চলে যান। বাসায় ছিলো মা ও ছেলে।
চাকরি শেষে ময়ুরী রাত ৯টার দিকে বাসায় ফিরে দেখেন দরজা খোলা। মেঝেতে মা ও ভাইয়ের রক্তাক্ত লাশ পড়ে রয়েছে। এসময় তার চিৎকারে আশাপাশের লোকজন এগিয়ে আসে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করে।

Shares