আজ শনিবার , ১৫ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১লা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

ময়মনসিংহের ত্রিশালে সাংবাদিক এনামুল ফাউন্ডেশনের ইফতার ও দোয়া মাহফিল মা দিবসের শুভেচ্ছা ময়মনসিংহের এিশালে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি ও দীর্ঘায়ু কামনায় ইফতার হালুয়াঘাটে আরব আলী ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ৬ শত মানুষ পেল ঈদ উপহার হালুয়াঘাটে রাস্তার দাবিতে মানববন্ধন মর্ডান স্পোটিং ক্লাবের দোয়া ও ইফতার জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ নেতা কায়েসের ঈদ উপহার সচেতনতা মুলক স্টিকার ও মাস্ক বিতরণ করলো জনপ্রিয় সেচ্ছাসেবী সংঘঠন ত্রিশাল হেল্পলাইন আজ শফিকুল ইসলাম ভাইয়ের মৃত্যুবার্ষিকী খালেদা জিয়ার রোগ মুক্তি কামনায় ত্রিশাল ছাত্রদলের পক্ষ থেকে ইফতার বিতরণ হালুয়াঘাটে কৃষকের ধান কাটলেন এমপি হালুয়াঘাটে কর্মহীন মানুষের মাঝে রুবেলে’র খাদ্য সামগ্রী বিতরণ! করোনাঃ মৃত্যুর মিছিলে ১৫৪ চিকিৎসক বাউফলে ডায়রিয়া আক্রান্তদের মাঝে বিনামূল্যে স্যালাইন বিতরণ বাউফলে টাকা চুরি’র ঘটনাকে কেন্দ্র করে এক যুবককে কুপিয়ে জখম

বাউফলে ব্রিজের নির্মাণ কাজ বন্ধ, জনদুর্ভোগ

প্রকাশিতঃ ৭:৫৮ অপরাহ্ণ | আগস্ট ১০, ২০২০ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ১০৯ বার

বাউফল(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর বাউফল ও নওমালা সড়কের ভিডিসি বাজার সংলগ্ন খালের উপর একটি গার্ডার ব্রিজের নির্মাণ কাজ দীর্ঘ দিন ধরে বন্ধ রয়েছে । এর ফলে সাধারন মানুষ দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন। মেসার্স সম্পা কনকট্রাকশনের নামে পটুয়াখালীর জনৈক এনায়েত হোসেন এই গার্ডার ব্রিজটির নির্মাণ কাজ করছেন।
জানা গেছে, ২০১৯-২০২০ইং অর্থ বছরের স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের আওতায় ওই সড়কের ভিডিসি সংলগ্ন খালের উপর ২ কোটি ২৪ লাখ ১৮ হাজার ৮০ টাকা ব্যয়ে ২৫ মিটার দৈর্ঘ, ৭ পয়েন্ট ৩ মিটার প্রস্থর এবং ৪ মিটার উচ্চতা সম্পন্ন গার্ডার ব্রিজ নির্মাণের জন্য গত বছর অক্টোবর মাসে দরপত্র আহবান করা হয়। কার্যদেশ পাওয়ার তিন মাসের মধ্যে ব্রিজটির নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হওয়া কথা থাকালে তা করা হয়নি। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান চলতি বছর জানুয়ারি মাস থেকে ব্রিজটির নির্মাণ শুরু করেন। ব্রিজটির ৬০ ভাগ কাজ শেষ হলেও মে মাস থেকে ব্রিজটির নির্মাণ কাজ বন্ধ রয়েছে। বিকল্প পথে যাতায়তের জন্য ওই নির্মাণাধিন ব্রিজের পশ্চিম পাশে একটি কাঠের সেতু নির্মাণ করে দেয়া হলেও বর্তমানে সেটি বেহাল অবস্থায় পরিণত হয়েছে। সেতুটি দেবে গেছে। বর্ষার পানিতে ওই কাঠের সেতুর দুই পাশ ডুবে যাওয়ায় । এ ছাড়াও সেতুটির সংযোগ সড়ক খানাখন্দে পরিণত হয়েছে। এই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন কয়েক হাজার মানুষ পটুয়াখালী জেলা শহরেরসহ বিভিন্ন স্থানে যাতায়ত করতে গিয়ে দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন।
এ ব্যাপারে জানাতে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সাব-কন্ট্রাকটর এনায়েত হোসেনের মুঠো ফোনে কল দেয়া হলে তিনি ফোন রিসিভ করেন। পরে সাংবাদিক পরিচয় পাওয়ার পর লাইন কেটে দেন। এরপর আর ফোন রিসিভ করেননি।

Shares