আজ শুক্রবার , ৩রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

রামচন্দ্রকুড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে এস.এস.সি পরীক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা রামচন্দ্রকুড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে এস.এস.সি পরীক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা রামচন্দ্রকুড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে এস.এস.সি পরীক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা বাউফলে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস পালিত হালুয়াঘাটে ঐতিহাসিক তেলিখালী যুদ্ধ দিবস উদযাপন বাউফলে যুবদলের ৪৩ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পলিত নালিতাবাড়ীতে শিক্ষক নেতার উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন নালিতাবাড়ীতে শিক্ষক নেতার উপর সন্ত্রাসী হামলার বিচারের দাবীতে আজ মানববন্ধন হালুয়াঘাটের শিমুলকুচি গ্রামে কামাল’র কুলখানি অনুষ্ঠিত হালুয়াঘাটে বৃদ্ধকে নির্যাতনের ঘটনায় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ হালুয়াঘাটের ট্রলি উল্টে দুই বন্দর শ্রমিকের মৃত্যু, আহত ৬ মাছ ধরার জালে ঢিল ছোড়ায় খুন হন শিশু শিক্ষার্থী সুমন হালুয়াঘাটে ১ম শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে কুপিয়ে খুন এমপি’র কাছে নালিশ করায় বৃদ্ধকে পিটিয়েছে চেয়ারম্যান হালুয়াঘাটে প্রতারিত শত শত কৃষক

বাউফলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনার আঘাত

প্রকাশিতঃ ২:৪৫ অপরাহ্ণ | জুন ১৯, ২০২০ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ২০৬ বার

তোফাজ্জেল হোসেন,বাউফল(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি: সারা দেশের ন্যয় পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেও আঘাত হানছে করোনা ভাইরাস। গত ২রা মার্চ থেকে করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দিলে স্বাস্থ্য সেবায় ব্যস্ত হয়ে পড়েন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকসহ স্বাস্থ্য কর্মীরা । কোন ব্যক্তির করোনা ভাইরাসের উপসর্গ দেখা দিলে তাঁদের নমুনা সংগ্রহ করা, আক্রান্তদের আইসোলেশনে চিকিৎসা সেবা প্রদান , আক্রান্তদের সান্নিধ্যে এসেছেন এমন ব্যক্তিদের হোম কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থা করাসহ বিভিন্ন সেবা দিতে গিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাসহ ৭ জন স্বাস্থ্যকর্মী নিজেরাই এখন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।তবুও থেমে নেই চিকিৎসাসেবা। সার্বক্ষনিক করোনায় আক্রান্তদের নিরলসভাবে চিকিৎসাসেবা দিয়ে যাচ্ছেন চিকিৎসকসহ মাঠ পর্যায়ের স্বাস্থ্য কর্মীরা। হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, প্রথমে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন নান্নু মুনসী(৪৫) নামে এক চতুর্থ শ্রেনির কর্মচারী। এরপর পর্যায়ক্রমে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকসহ অন্যান্য স্বাস্থ্য কর্মীদের নমুনা সংগ্রহ করে পাঠালে গত ১০ জুন রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকতা ডাঃ প্রশান্ত কুমার সাহা ও সবুজ নামে একজন হারবাল এ্যাসিস্ট্যন্টের কোভিড-১৯ পজেটিভ আসে। এরপরে ১২ জুন রাতে একজন এমটিইপিআই করোনা পজেটিভ সনাক্ত হয়। মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট মঞ্জুরুল হকের কোবিড-১৯ পজেটিভ আসে ১৭ জুন। সর্বশেষ গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার নাঈমুজ্জামান খান করোনা শিকার হন।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা(ভারপ্রাপ্ত) ডাঃ আখতারুজ্জামান বলেন, স্বাস্থ্য সেবা দিতে গিয়ে উপজেলা স্বাস্থৗ কমপ্লেক্সের কর্মকর্তাসহ মোট ৭ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে নান্নু মুন্সী নামে চতুর্থ শ্রেনির একজন কর্মচারী সুস্থ্য হয়ে কর্মস্থলে যোগ দিয়েছেন। অন্যান্যরা সবাই হোম আইসোলেশনে চিকিৎসা সেবা গ্রহন করছেন। এখন পর্যন্ত শারীরিকভাবে সবাই সুস্থ্য আছেন।

Shares