আজ রবিবার , ১৭ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১লা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

নালিতাবাড়ীতে শিক্ষক নেতার উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন নালিতাবাড়ীতে শিক্ষক নেতার উপর সন্ত্রাসী হামলার বিচারের দাবীতে আজ মানববন্ধন হালুয়াঘাটের শিমুলকুচি গ্রামে কামাল’র কুলখানি অনুষ্ঠিত হালুয়াঘাটে বৃদ্ধকে নির্যাতনের ঘটনায় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ হালুয়াঘাটের ট্রলি উল্টে দুই বন্দর শ্রমিকের মৃত্যু, আহত ৬ মাছ ধরার জালে ঢিল ছোড়ায় খুন হন শিশু শিক্ষার্থী সুমন হালুয়াঘাটে ১ম শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে কুপিয়ে খুন এমপি’র কাছে নালিশ করায় বৃদ্ধকে পিটিয়েছে চেয়ারম্যান হালুয়াঘাটে প্রতারিত শত শত কৃষক বাউফলে মাছের পোনা অবমুক্তকরণ বাউফল উপজেলা ও পৌর সেচ্ছাসেবক দলের আহব্বায়ক কমিটি ঘোষণা বাউফলে ইউএনও’র বিদায়ী সংবর্ধনা নালিতাবাড়ীতে জেলা শিক্ষা অফিসারের বিদ্যালয় পরিদর্শন বাউফলে বিএনপি’র ৪৩ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত বাউফলে ছেলের বিচার চেয়ে বাবা মায়ের সাংবাদিক সম্মেলন

হালুয়াঘাটে সবজি’র দাম না পেয়ে লোকসানে শতাধিক কৃষক

প্রকাশিতঃ ১:৩৬ অপরাহ্ণ | এপ্রিল ১২, ২০২০ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ১৩২ বার

সবজি'র দাম না পেয়ে লোকসানে শতাধিক কৃষক

ওমর ফারুক সুমন: করোনা ভাইরাসের প্রভাবে সবজির দাম না পেয়ে ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে সবজি ক্ষেতে আগুন দিয়েছে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা। ফলে লোকসানের মুখে উপজেলার ঘিলাভুই, উত্তর বাঘাইতলা, মাঝড়াকুড়া গ্রামের শতাধিক সবজি চাষী। সবজি বিক্রি করতে না পেরে শুক্রবার বিকেলে উপজেলার পূর্ব ঘিলাভূই গ্রামে ঝিঙা ক্ষেতে আগুন দেয়া বেশ কিছু হতাশাগ্রস্থ কৃষক। একইসাথে লক্ষাধিক টাকার সবজি নষ্ট করে স্থানীয়রা। স্থানীয় রুহুল আমিন নামে এক আড়তদার জানান, কৃষকদেরকে ঝিঙা চাষ করতে প্রায় ত্রিশ লক্ষ টাকা আগাম পরিশোধ করেছেন তিনি।কিন্তু করোনা ভাইরাসের প্রভাবে যানবাহন না চলায় সবজি বিক্রি করতে পারছেনা। তাতে চরম বিপাকে রয়েছেন আড়তদার রুহুল আমিন।তিনি বলেন, এ অবস্থায় তার আসল টাকাতো দূরের কথা, নিঃস্ব হওয়া উপক্রম হয়েছেন তিনি। তিনি বলেন, কৃষকদের উৎপাদিত সবজি ঢাকায় নিয়ে বিক্রি করার কথা ছিলো। কিন্তু দেশের এই দুর্দিনে ঢাকাতেও নেই সবজির দাম। ঘর থেকেই মানুষ বের হতে পারছেনা, সবজি কিনবে কেমনে? এমন মন্তব্য রুহুল আমিনের। পূর্ব ঘিলাভুই গ্রামের নবী হোসেন (৩০) জানান, তিনি এক একর মাটিতে ঝিঙা চাষ করেছেন। কিন্তু বাজারে নিয়ে গেলে কেউ কিনতে চায়না। বাজার একেবারেই কম। এ অবস্থায় চরম হতাশায় রয়েছেন তিনি। একই গ্রামের মাইন উদ্দিন (৫৫) ৭৫ শতাংশ মাটিতে ঝিঙা চাষ করেছেন। এরকমভাবে লিটন ১৬ কাঠা, সিরাজ (৪০) ১৪ কাঠা, মফিজ খা (৬০) ২৫ কাঠা, সোহাগ (৪০) ২৪ কাঠা, জয়নাল ১২ কাঠা, নুরু ৫ কাঠা, জামাল ৭ কাঠা, নিজাম উদ্দিন ৬ কাঠা মাটিতে ঝিঙা চাষ করেছেন। এরকম আরও বহু কৃষক অর্থাৎ সব মিলিয়ে প্রায় ৬০ একর মাটিতে সবজি হিসেবে ঝিঙা চাষ করেছেন কয়েক গ্রামের শতাধিক কৃষক। কিন্তু বিক্রি করতে না পারায় ক্ষেতেই নষ্ট হচ্ছে তাদের সবজি। পরিবহন আর ন্যায্য দাম না পাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা চরম হতাশায় দিনাতিপাত করছেন। ###

Shares