আজ বুধবার , ২৭শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

হালুয়াঘাটে টাকা ছাড়া মিলছেনা সেচ লাইসেন্স হালুয়াঘাটে এক শত গৃহহীন পরিবারকে প্রধান মন্ত্রীর দেয়া ঘর হস্তান্তর হালুয়াঘাটে ১২শত মানুষের মাঝে ‘প্রিন্সে’র শীত বস্ত্র বিতরণ পাটগ্রাম সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত চুয়াডাঙ্গায় স্বামীর মোটরসাইকেল থেকে পড়ে নিহত ১ ময়মনসিংহের ত্রিশাল সরকারি নজরুল একাডেমি ভর্তির লটারীর ড্র অনুষ্ঠিত ময়মনসিংহের ত্রিশাল কুড়াগাছা রাস্তার বেহাল দশা ময়মনসিংহের ত্রিশাল পৌরসভার বাতিলকৃত নির্বাচন ১৪ই ফেব্রুয়ারী আর কলেজে ভর্তি হওয়া হলো না নুসরাতের দুইবারের বেশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সভাপতি নয়, হাইকোর্টের রায় স্টামফোর্ড সাংবাদিক ফোরামের সহ-সভাপতি হলেন বাউফলের মাজহারুল তামিম বাউফল প্রেসক্লাবের নব নির্বাচিত কমিটির শপথ গ্রহন বাউফলে আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত যাত্রীবাহি বাসে অজ্ঞান পার্টির ৫ জন ধৃত বাউফলে গোদরোগ প্রতিরোধে সামাজিক উদ্বুদ্ধকরণ সভা অনুষ্ঠিত

নেত্রকোনায় টয়লেটে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টা শিক্ষকের! এলাকাবাসীর মানবন্ধন!

প্রকাশিতঃ ৭:৪৯ অপরাহ্ণ | জানুয়ারি ২৯, ২০২০ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ১২৪ বার

অনলাইন ডেস্কঃ বিদ্যালয়ের টয়লেটে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা চালিয়েছে এক শিক্ষক। এ ঘটনায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই ছাত্রীর মা বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন। এদিকে ঘটনার প্রতিবাদে ও অভিযুক্ত শিক্ষকের বিচার দাবিতে ফুঁসে ওঠেছে এলাকাবাসী। ঘটনাটি ঘটেছে, নেত্রকোনার আটপাড়া উপজেলায়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত রোববার বিকালে উপজেলার সুখারি ইউনিয়নের একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের খণ্ডকালীন শিক্ষক ঝন্টু সরকার (৩০) সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীকে বিদ্যালয়ের টয়লেটে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এ সময় ওই ছাত্রীর চিৎকারে পাশের এক দোকানিসহ কয়েকজন শিক্ষার্থী ছুটে এলে শিক্ষক ঝন্টু সরকার দ্রুত সটকে পড়েন। এরপর থেকে তিনি আর বিদ্যালয়ে আসেননি। পরে ঘটনাটি কাউকে না জানাতে তিনি ওই ছাত্রীকে ভয়ভীতি দেখান।

বিষয়টি জানাজানি হলে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও স্থানীয়দের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।
এ ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী মানববন্ধন করেন। বিদ্যালয়ের সামনের সড়কে ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য দেন বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য কালাম মিয়া, অভিভাবক মতি মিয়া, সেলিম মিয়া, শামিম মিয়া, মো. কামরুল হাসান, কায়েস আহম্মেদ প্রমুখ।

এ ঘটনায় সন্ধ্যার দিকে মেয়েটির মামা বাদী হয়ে ওই শিক্ষককে একমাত্র আসামি করে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন মামলা করেন। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত শিক্ষক পলাতক।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আবুল কালাম আজাদ জানান, ঘটনার পরপরই বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। দায়ী শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। নেত্রকোনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (কেন্দুয়া সার্কেল) মাহমুদুল হাসান বলেন, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ঘটনার সত্যতা পেয়েছি। এ নিয়ে থানায় মামলা হয়েছে। আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

Shares