আজ বুধবার , ২৭শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

নালিতাবাড়ীতে শিক্ষক নেতার উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন নালিতাবাড়ীতে শিক্ষক নেতার উপর সন্ত্রাসী হামলার বিচারের দাবীতে আজ মানববন্ধন হালুয়াঘাটের শিমুলকুচি গ্রামে কামাল’র কুলখানি অনুষ্ঠিত হালুয়াঘাটে বৃদ্ধকে নির্যাতনের ঘটনায় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ হালুয়াঘাটের ট্রলি উল্টে দুই বন্দর শ্রমিকের মৃত্যু, আহত ৬ মাছ ধরার জালে ঢিল ছোড়ায় খুন হন শিশু শিক্ষার্থী সুমন হালুয়াঘাটে ১ম শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে কুপিয়ে খুন এমপি’র কাছে নালিশ করায় বৃদ্ধকে পিটিয়েছে চেয়ারম্যান হালুয়াঘাটে প্রতারিত শত শত কৃষক বাউফলে মাছের পোনা অবমুক্তকরণ বাউফল উপজেলা ও পৌর সেচ্ছাসেবক দলের আহব্বায়ক কমিটি ঘোষণা বাউফলে ইউএনও’র বিদায়ী সংবর্ধনা নালিতাবাড়ীতে জেলা শিক্ষা অফিসারের বিদ্যালয় পরিদর্শন বাউফলে বিএনপি’র ৪৩ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত বাউফলে ছেলের বিচার চেয়ে বাবা মায়ের সাংবাদিক সম্মেলন

হালুয়াঘাটে ভাতার টাকা পেয়ে নুরজাহান বিবির মুখে হাসি

প্রকাশিতঃ ১:৫০ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ১১, ২০১৮ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ২৭২ বার

স্টাফ রিপোর্টারঃ বহু প্রতীক্ষার পর ৯২ বছর বয়সে এসে বয়স্ক ভাতার টাকা পেয়ে মুখে হাসি ফুটলো নুরজাহান বিবির। মঙ্গলবার একসাথে তিনি ভাতা হিসেবে ৭৫০০ টাকা সোনালী ব্যাংক হালুয়াঘাট শাখা থেকে উত্তোলন করেন। তার মেয়ে সুরবানুকে সাথে নিয়ে টাকা উত্তোলনের পর টাকা হাতে নিয়ে বলেন, আমি অনেক খুশি। যাদের অক্লান্ত পরিশ্রমে তার ভাতার ব্যবস্থা হয়েছে তাদের জন্যে দু’হাত তুলে দোয়া করেন তিনি। এখন একটু অতীতের দিকে যায়। প্রায় বছরখানেক পূর্বে যুবলীগ নেতা মোর্শেদ আলমের মাধ্যমে খবর পেয়ে গিয়েছিলাম নুরজাহানের বাসায়।গিয়ে দেখি অসুস্থ্য অবস্থায় বারান্দায় শুইয়ে আছেন তিনি। তার বিধবা মেয়ে সুরবানু তাকে দেখাশোনা করছেন।এ অবস্থায় প্রথম কথা বলতে চেষ্টা করি নুরজাহান বিবির সাথে।তার মুখের কথাগুলো ছিলো এইরকম।—–
হোন্ডার নিচে পইরা একটা পা ভাইংগা গেছে।উঠবার পায়না বাবা!আডাচাড়া(নড়াচঁড়া) করবার পায়না! মাইনসে টাইন্যা (টেনে) নিয়া গেলে যাইবার পাই! এক পোলা অসুখে মইরা গেছে! আরেক পুলা আছে সেও কঠিন অসুগে ঘরে পইরা আছে! মাইয়া একটা তার স্বামীও ফালাইয়া রাইখা গেছে।ঐ মাইয়াডাই আমারে দেহে। মাইয়াই তো খাইবার পায়না। আমারে কেমনে দেখবো। আমারে একটা কার্ড দিলাইননা। আইন্যেরা না দিলে দেখবো কেডা! বয়স অইছে। মইরা যামুগা।আজ সেহরির সময় হুডা করলা ভাঁজা দিয়া ভাত খাইছি।রোযা ভাংবার মন চাইনা। ভালাতো কিছু পাইনা! পুতেরইতো চলেনা, নইলেতো খাওন দিতই। হেই ঘরে পইরা আছে। চেয়ারম্যানের কাছে কয়বার গেলাম! দেয়না একপর্যায়ে ভাঙ্গা পা’টা দেখিয়ে নিঃশ্বাস ছাড়ে।

Shares