আজ বৃহস্পতিবার , ২৩শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

নালিতাবাড়ী উপজেলা নির্বাচনে মোশারফ, ফরিদ, আশুরা বিজয়ী গরীবের আশার বাতিঘর হাজী মোশারফ হালুয়াঘাটে পল্লী বিদ্যুতের খুঁটি পুঁততে গিয়ে মৃত্যু-১, আহত-১ জাতীয় ভাবে”স্বপ্নজয়ী মা” নির্বাচিত হলেন জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জের অবিরণ নেছা ৬১০৮ ভোটের ব্যবধানে হামিদ বিজয়ী। শেখ রাসেল ও মনোয়ারা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হালুয়াঘাট উপজেলা পরিষদ নির্বাচনঃ প্রবীণে প্রবীণে লড়াই এম্বুলেন্সে করে মাদক পাচারকালে ২৪০ বোতল ভারতীয় মদসহ একজন আটক এমপি মাহমুদুল হক সায়েমকে সি.আই.পি শামিমের সংবর্ধনা হালুয়াঘাটে ঈদে বাড়ি ফেরার পথে লাশ হল স্বামীসহ অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী হালুয়াঘাটের স্থলবন্দর দিয়ে ২৭টি পণ্যের আমদানী রপ্তানীর পরিকল্পনা-এমপি সায়েম হালুয়াঘাটে ২৭ হাজার দুস্থ অসহায় পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার ১৩ বছর পর পদত্যাগ করলেন ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হালুয়াঘাটে ফেইসবুক গ্রুপে কোরআন তেলাওয়াত ও ইসলামী সংগীত প্রতিযোগিতা। পুরস্কার বিতরণ ‘কৃষ্ণনগরের কৃষ্ণকেশীর ‘বেহিসেবি রঙ.. হিমাদ্রিশেখর সরকার হালুয়াঘাট থেকে ফুলপুর পর্যন্ত চার লেনের রাস্তা নির্মাণসহ সড়ানো হচ্ছে অস্থায়ী বাস কাউন্টার

হালুয়াঘাটের কিডনী রোগে আক্রান্ত মেধাবী কলেজ ছাত্রী ‘সাথী’ আর নেই

প্রকাশিতঃ ৭:৩২ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ০৫, ২০১৮ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ১,১১৪ বার

ওমর ফারুক সুমনঃ সাড়ে চার বৎসরের অধিক সময় মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে শেষ বিদায় নিল মেধাবী কলেজ শিক্ষার্থী “শিরিন নাহার সাথী”।বুধবার সকাল সাতটার সময় উত্তর খয়রাকুড়িস্থ (থানার দক্ষিনে) নিজ বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন সাথী। অনেক শান্ত-ভদ্র-বিনয়ী ছিলেন মেয়েটি। দেখতে ছিলেন খুবই সুশ্রী।সকলের প্রিয় পাত্র ছিলেন।তার এক ছোট বোন কন্ঠশিল্পী সুমাইয়া আক্তার কাকলী। বাবা সিরাজুল ইসলাম একজন গাড়ী চালক। অনেক স্বপ্ন দেখতেন মেয়েটিকে নিয়ে। কিন্তু বিধির লীলায় সকলের স্বপ্ন ভেঙ্গে দিয়ে পরকালের দেশে চলে গেলেন ফুটফুটে মেয়েটি। সাথী’র অকাল মৃত্যুতে হালুয়াঘাটের সকল শ্রেণী পেশার মানুষের মাঝে শোকের ছায়া নেমে আসে। সেই সাথে সাথীর পরিবার হারায় একটি তাঁজা প্রাণ। সাথী হালুয়াঘাট শহীদ স্মৃতি ডিগ্রী কলেজের স্নাতক বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। এক পর্যায়ে ডাক্তারী পরীক্ষা করে জানতে পারেন তার দুইটি কিডনি বিকল হয়ে যায়। সাথীর এই দূরারোগ্য ব্যাধীতে অনেকেই সাহায্য সহযোগীতায় এগিয়ে এসেছিলেন। কন্ঠশিল্প রিংকু সংগিত পরিবেশন করে সমস্ত টাকা সাথীর চিকিৎসা কাজে ব্যয় করেন। আপামর সকল শ্রেণীর মানুষ সাহায্যে এগিয়ে আসেন।কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি তার। সকলের মনে দাগ কেটে বিদায় নেন তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল প্রায় ২৩ বৎসর। সে হালুয়াঘাট আদর্শ মহিলা মহাবিদ্যালয় থেকে ২০১০ সালে এইচ এস সি পাশ করেন। এই্চ এস সি পাশ করার পর স্নাতক শ্রেণীতে ভর্তির বছর দুই পরেই দূরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত হন সাথী। তার দুটি কিডনীই বিকল হয়ে যায়। এ অবস্থায় সাথীর পরিবার কিডনী ইন্সটিটিউটের তত্বাবধানে দীর্ঘ সাড়ে চার বছরে মেয়েকে বাঁচিয়ে তুলতে ২০-২৫ লক্ষ টাকা খরচ করেন।শেষ পর্যন্ত মৃত্যুর কাছে পরাজিত হন মেধাবী এই শিক্ষার্থী।

Shares