আজ শনিবার , ১৯শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৫ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

জনগনের সেবক হতে চাই- অধ্যক্ষ পিকু জনগনের সেবক হতে চাই- অধ্যক্ষ পিকু হালুয়াঘাটে আশার আলো’র নির্বাচন! কাঞ্চন সভাপতি, আলী হোসেন সম্পাদক ব্যক্তিগত কারণে আত্মগোপনে ছিলেন ত্ব-হা: ডিবি হালুয়াঘাটে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান উপলক্ষে প্রেস ব্রিফিং হালুয়াঘাটে বাসের চাপায় পিষ্ট হয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী নিহত একদিনে আরও ৬০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩৯৫৬ ময়মনসিংহে নিখোঁজ শিক্ষার্থীর লাশ পাওয়া গেল টয়লেটের ট্যাংকে বাউফলে ইউএনও’র হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ে বন্ধ ময়মনসিংহের ত্রিশালে সাংবাদিক এনামুল ফাউন্ডেশনের ইফতার ও দোয়া মাহফিল মা দিবসের শুভেচ্ছা ময়মনসিংহের এিশালে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি ও দীর্ঘায়ু কামনায় ইফতার হালুয়াঘাটে আরব আলী ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ৬ শত মানুষ পেল ঈদ উপহার হালুয়াঘাটে রাস্তার দাবিতে মানববন্ধন মর্ডান স্পোটিং ক্লাবের দোয়া ও ইফতার

পিতার কোলে মেয়ের কাফনে মোড়ানো দেহ! এমন মৃত্যু আমরা মানি না

প্রকাশিতঃ ১২:১৬ পূর্বাহ্ণ | আগস্ট ৩১, ২০১৮ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ৩৬৬ বার

অনলাইন ডেস্কঃ মায়ের কোল। পৃথিবীর সবচেয়ে নিরাপদ আশ্রয়স্থল। সেখানেও বাঁচতে পারলো না শিশুটি। না, এটি কোনো দুর্ঘটনা নয়। স্রেফ হত্যাকাণ্ড। ভিডিওটি দেখলে সহ্য করা যায় না।
এক বছরের আকিফাকে কোলে নিয়ে রাস্তা পার হচ্ছিলেন মা। বাসটি ছিলো দাঁড়ানো। কিন্তু হঠাৎই চলতে শুরু করে বাস। ধাক্কা দেয় মা-শিশুকে। ছিটকেপড়া শিশুটিকে বাঁচানো যায়নি। হাজারো লাখো মানুষকে কাঁদিয়ে সে চলে গেছে না ফেরার দেশে। পিতার কোলে মেয়ের কাফনে মোড়ানো দেহ।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে দেশজুড়ে চলা আলোচনা-সমালোচনার মধ্যে আকিফার মর্মান্তিক, মর্মন্তুদ ঘটনাটি ঘটে কুষ্টিয়ায়। যৌথ পরিবারে ছোটভাই হারুন অর রশীদের মেয়ে ছোট্ট পরী আকিফা ছিল সকলের চোখের মণি। আকিফার উপস্থিতিতে গোটা পরিবারে যেন প্রাণ ফিরে পেয়েছিল। সে ছিল সদা প্রাণবন্ত এক দেবশিশু। আকিফার বড় চাচা আবুবকর মানবজমিনকে বলেন, কোরবানির ঈদের সময় ওকে নিয়ে আমরা অনেক মজা করেছি। একের পর এক ঈদের পোশাকে মনে হতো একটি ছোট্ট পরীর বাচ্চা নেমে এসেছে আমাদের ঘরে। গত মঙ্গলবার দুপুর পৌনে ১২ টায় মায়ের সঙ্গে নানার বাড়ি যাচ্ছিল আকিফা।

এ সময় কুষ্টিয়ার চৌড়হাস মোড় এলাকায় আকিফাকে কোলে নিয়ে তার মা সড়ক পার হচ্ছিলেন। পেছনে দাঁড়িয়ে ছিল ফয়সল গঞ্জেরাজ নামের একটি বাস। কিন্তু সবার চোখের সামনেই বাসটি। মা ও শিশুকে ধাক্কা দিয়ে এগিয়ে যায়। উপস্থিত লোকজন জড়ো হয়ে আকিফাকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাকে আনা হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। বৃহস্পতিবার ভোরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। শিশু আকিফা কুষ্টিয়া শহরের চৌড়হাসের সবজি ব্যবসায়ী হারুন-অর-রশিদের মেয়ে। মঙ্গলবার দুপুরে এমন দুর্ঘটনার ভিডিওচিত্র ফেসবুকে ভাইরাল হলে তোলপাড় সৃষ্টি হয় সর্বত্র।

মেয়ের এমন মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনার বিচার চেয়েছেন আকিফার বাবা হারুন-অর-রশিদ। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আকিফার লাশ নিয়ে যাওয়ার সময় কান্নায় ভেঙে পড়েন তার স্বজনরা। এ সময় মেয়ে হত্যার বিচার দাবি করে হারুন-অর-রশিদ ঘটনার ভিডিওটি সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে দেখার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, বাসটিকে থামা অবস্থায় দেখতে পেয়েই তাঁর স্ত্রী সন্তানকে নিয়ে বাসের সামনে দিয়ে পার হচ্ছিলেন।

কিন্তু চালক না দেখেই চালিয়ে দিলো। তার মানে চালক ইচ্ছাকৃতভাবে চাপা দিয়েছে। ভিডিও দেখে মন্ত্রীই বলুন এটি ইচ্ছাকৃত কি-না। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদ বলেন, মাথায় আঘাতের কারণেই আকিফার মৃত্যু হয়েছে। কুষ্টিয়া মডেল থানার পরিদর্শক (অপারেশন) শেখ ওবায়দুল্লাহ গণমাধ্যমকে বলেন, এরই মধ্যে বাসের মালিক, চালক ও সহকারীর নাম, ঠিকানা, বাসের নম্বর সংগ্রহ করা হয়েছে। শিশুটির বাবা ফিরলেই মামলা নেয়া হবে।

এদিকে ঘটনার ?সি?সি টি?ভি ফু?টে?জ সামা?জিক যোগা?যোগ মাধ্য?মে ভাইরাল হওয়ায় ফুঁ?সে উ?ঠেছে? কুষ্টিয়ার স?চেতন মহল। আলোচিত এই ঘটনায় যাত্রীবাহী বাসচালকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে ঘটনাস্থল কুষ্টিয়ার চৌড়হাসে বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় মানববন্ধন করে স্কুলের শিক্ষার্থীরা ও স্থানীয় সচেতন এলাকাবাসী। হাজারো মানুষের কর্মসূচি থেকে বাসচালকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির পাশাপাশি পরিবহনে শৃঙ্খলা ফেরানোর দাবি জানানো হয়।

Shares