আজ মঙ্গলবার , ২৪শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

কোভিড-১৯ প্রতিরোধে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে মেয়রের আহব্বান বাউফলে তারেক রহমানের জন্মবার্ষিকী পালিত বাউফলে প্রায়তঃ শিক্ষকের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া-মোনাজাত আত্মহত্যার পরও সূদের টাকার জন্য ফোন! ত্রিশালে সড়ক দূরঘটনায় একজন নিহত চার জন আহত ত্রিশালে যুবলীগের ৪৮তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত আমতলীতে মাদ্রাসা মাঠে ধান চাষ বরগুনায় ১০ দোকান পুড়ে ছাই হৃদয় হত্যাকাণ্ডে জড়িত প্রত্যেকের ফাঁসি চান পরিবার আইপিএলে ,নিঃস্ব হচ্ছে অনেক পরিবার ত্রিশাল অনলাইন প্রেসক্লাবের উদ্যোগে শাহ্ আহসান হাবীব বাবুর জন্ম দিন পালন বরগুনায় সেরা সম্পাদককে সংবর্ধনা বরগুনা বেতাগীর আলোচিত বজলু হত্যা মামলার ২ নম্বর আসামি আটক ত্রিশালে শহীদ বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান সড়ক উদ্বোধন ত্রিশালে বিভাগীয় কমিশনারের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

টয়লেট, হাত ধোয়ার ব্যবস্থা নেই বিশ্বের অর্ধেক স্কুলে

প্রকাশিতঃ ২:৩০ অপরাহ্ণ | আগস্ট ২৮, ২০১৮ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ২২৫ বার

নিজস্ব প্রতিবেদক: সুপেয় পানি, টয়লেট ও ভদ্রোচিত হাত-মুখ ধোয়ার ব্যবস্থা নেই বিশ্বের অর্ধেক স্কুলে। এর ফলে স্কুলগামী প্রায় ৯০ কোটি শিশু-কিশোরই মৌলিক স্বাস্থ্য সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এতে গুরুতর স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়ছে শিক্ষার্থীরা। বিশেষ করে মেয়ে শিক্ষার্থীরা। এমনকি পড়াশোনার পাঠ চুকাতে বাধ্য হচ্ছে তাদের অনেকেই।

ভয়াবহ এসব তথ্য উঠে এসেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও ইউনিসেফের যৌথ এক গবেষণা রিপোর্টে। স্কুলে ছাত্রছাত্রীদের সুপেয় পানি পান ও টয়লেট সুবিধা নিয়ে গবেষণাটি বেশ তাৎপর্যপূর্ণ। সোমবার (২৭ আগস্ট) রিপোর্টটি প্রকাশ করা হয়।

রিপোর্টে বলা হয়, বিশ্বের প্রায় এক-তৃতীয়াংশ প্রাথমিক স্কুল ও মাধ্যমিক স্কুলেই নিরাপদ ও সুপেয়ে পানির ব্যবস্থা নেই। ২০ শতাংশ স্কুলে আদৌ কোনো নিরাপদ পানির ব্যবস্থা নেই। ফলে ৫৭ কোটি শিশু-কিশোর স্বাস্থ্যগতভাবে ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে।

স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট সুবিধা পায় না প্রায় ৬২ কোটি ছাত্রছাত্রী। এছাড়া প্রায় ৯০ কোটি শিক্ষার্থী টয়লেট ব্যবহারের পর সঠিকভাবে হাত ধোয়ার সুবিধা তথা সাবান পায় না। স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেটের অভাবে স্কুলে যেতে চায় না ছাত্রছাত্রীরা। এসব কারণে বিশেষ করে মেয়ে শিশুদের ক্ষেত্রে স্কুলে যাওয়ার হার কমে যাচ্ছে।

গবেষণার ফল ও পরিসংখ্যানের মাধ্যমে বিশ্বের নীতিনির্ধারকদের গুরুত্বপূর্ণ বার্তা ও হুশিয়ারি দিয়েছেন গবেষকরা। গবেষণা প্রকল্পের প্রধান গবেষক ও সমন্বয়ক বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কর্মকর্তা ড. রিক জনসন বলেন, এসব মৌলিক সুবিধা ছাড়া ভালো মানের শেখার পরিবেশ অসম্ভব। স্কুলে যদি টয়লেট না থাকে, শিশুরা সেখানে না-ও যেতে পারে। তারপরও যখন তারা স্কুলে যাচ্ছে, তা একরকম বাধ্য হয়েই যাচ্ছে।

জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন কর্মসূচির অধীনে ২০৩০ সালের মধ্যে প্রত্যেক শিশুর জন্য মানসম্মত শিক্ষা ও সবার জন্য স্বাস্থ্য সুবিধা নিশ্চিত করার জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছেন বিশ্বনেতারা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও ইউনিসেফের রিপোর্ট মতে, সেসব প্রতিশ্রুতি খাতা আর কলমেই সীমাবদ্ধ রয়েছে।

সূত্র-খবর টেলিগ্রাফ।

Shares