আজ রবিবার , ২০শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

জনগনের সেবক হতে চাই- অধ্যক্ষ পিকু জনগনের সেবক হতে চাই- অধ্যক্ষ পিকু হালুয়াঘাটে আশার আলো’র নির্বাচন! কাঞ্চন সভাপতি, আলী হোসেন সম্পাদক ব্যক্তিগত কারণে আত্মগোপনে ছিলেন ত্ব-হা: ডিবি হালুয়াঘাটে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান উপলক্ষে প্রেস ব্রিফিং হালুয়াঘাটে বাসের চাপায় পিষ্ট হয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী নিহত একদিনে আরও ৬০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩৯৫৬ ময়মনসিংহে নিখোঁজ শিক্ষার্থীর লাশ পাওয়া গেল টয়লেটের ট্যাংকে বাউফলে ইউএনও’র হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ে বন্ধ ময়মনসিংহের ত্রিশালে সাংবাদিক এনামুল ফাউন্ডেশনের ইফতার ও দোয়া মাহফিল মা দিবসের শুভেচ্ছা ময়মনসিংহের এিশালে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি ও দীর্ঘায়ু কামনায় ইফতার হালুয়াঘাটে আরব আলী ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ৬ শত মানুষ পেল ঈদ উপহার হালুয়াঘাটে রাস্তার দাবিতে মানববন্ধন মর্ডান স্পোটিং ক্লাবের দোয়া ও ইফতার

খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের ওপর আদেশ সোমবার

প্রকাশিতঃ ৪:৫১ অপরাহ্ণ | জুন ০১, ২০১৮ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ২১০ বার

অনলাইন ডেস্কঃ কুমিল্লার হত্যা-নাশকতা ও নড়াইলের মানহানির মামলায় জামিন চেয়ে খালেদা জিয়ার করা আবেদনের ওপর  শুনানি হয়েছে। ২৮ মে, সোমবার এ বিষয়ে আদেশ দেওয়া হবে।

২৭ মে, রবিবার বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি জে বি এম হাসানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে মামলাগুলোর শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। শুনানি শেষে আদালত সোমবার আদেশের জন্য দিন নির্ধারণ করে।

আদালত তার আদেশে বলে, ‘অর্ডার ফর টুমরো।’

নড়াইলে মানহানির মামলার শুনানিতে আদালতে খালেদা জিয়ার আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, ‘জামিনযোগ্য অপরাধে আসামি আবেদন না করলেও আদালত স্বতপ্রণোদিত হয়ে জামিন দিতে পারেন। ঢাকা ল’ রিপোর্ট (ডিএলআর) ৬৮ অনুযায়ী জামিনযোগ্য অপরাধের ক্ষেত্রে জামিন পাওয়া আসামির অধিকার। এ ক্ষেত্রে খালেদা জিয়া জামিন চেয়েছেন, কিন্তু ম্যাজিস্ট্রেট আদেশ দেননি, মামলার নথিগুলো রেখে দিয়েছেন; যা ক্ষমতার অপব্যবহার।’

জবাবে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, ‘এই মামলা সংক্রান্ত পূর্বের আদেশগুলো আদালতে দাখিল করা উচিত ছিল। সেগুলো দেওয়া হয়নি।’

কুমিল্লায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে দায়ের করা মামলায় (নাশকতার) জামিন চেয়ে খন্দকার মাহবুব হোসেন আদালতে বলেন, ‘সরকারি কোনো গাড়ি বা সম্পত্তি ক্ষতিগ্রস্ত হলে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৫(৩) ধারায় মামলা করা হয়। কিন্তু এই মামলার বিষয়টি বিশেষ ক্ষমতা আইনে করা হয়নি। এ মামলার মূল বিবেচ্য বিষয় হচ্ছে, কাভার্ডভ্যানে অগ্নিসংযোগের অভিযোগে দায়ের করা মামলা।

এ মামলার অন্যান্য আসামিরা জামিন রয়েছেন। এ সমস্ত বিবেচনায় খালেদা জিয়ার জামিন হতে হতে পারে। ফৌজদারি কার্যাবিধির ৪৯৭ ধারা অনুযায়ী গুরুতর অভিযোগের ক্ষেত্রেও মহিলা, বয়স্ক, অসুস্থ এবং শিশু বিবেচনায় জামিন দেওয়া যাবে, যে ক্ষেত্রে এই আইনে খালেদা জিয়ার জামিন পাওয়ার অধিকার রাখেন।’

গত ২০ মে কুমিল্লা ও নড়াইলের তিন মামলায় জামিন চেয়ে আবেদন করেন খালেদা জিয়া।

গত ১৬ মে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়াকে দেওয়া হাইকোর্টের জামিন বহাল রাখে আপিল বিভাগ। তবে তার কারামুক্তির জন্য আরও ছয়টি মামলায় জামিন নিতে হবে। পাশাপাশি চারটি মামলায় হাজিরা পরোয়ানা প্রত্যাহারের প্রয়োজন রয়েছে। সে অনুযায়ী খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা গত বৃহস্পতিবার ঢাকার পৃথক আদালতে দুটি মানহানির মামলায় জামিনের আবেদন করেন। চারটি মামলায় হাজিরা পরোয়ানা প্রত্যাহারের আবেদন জানান।

আদালত শুধু নাইকো মামলায় হাজিরা পরোয়ানা প্রত্যাহার করেছে। বাকি আবেদনগুলোর বিষয়ে পরে আদেশ দেওয়া হবে উল্লেখ করে দিন ধার্য করা হয়েছে।

২০১৫ সালে অবরোধ চলাকালে ২ ফেব্রুয়ারি রাতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে একটি বাসে পেট্রলবোমা নিক্ষেপের ফলে সাতজন যাত্রীর মৃত্যু এবং আরও ২৫ থেকে ২৬ জন গুরুতর আহতের ঘটনায় একটি মামলা হয়। এ মামলার অভিযোগপত্রে খালেদা জিয়ার নাম আসে।

একই বছরের ২৫ জানুয়ারি নাশকতার অভিযোগে বিশেষ ক্ষমতা আইনে দায়ের হওয়া একটি মামলায়ও খালেদা জিয়াকে আসামি করা হয়।

বিচার চলাকালে এ দুটি মামলায় গত ২৩ এপ্রিল জামিন চেয়ে আবেদন জানালে ৭ জুন দিন ধার্য করা হয়। এ তারিখ এগিয়ে আনার আবেদন জানালে আদালত তা-ও খারিজ করে দেয়।

মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করার অভিযোগে ২০১৫ সালের ২৪ ডিসেম্বর খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নড়াইলে মানহানির মামলা করে স্থানীয় এক মুক্তিযোদ্ধার ছেলে রায়হান ফারুকি ইমাম। মামলাটি নড়াইলের মুখ্য বিচারিক হাকিমের আদালতে বিচারাধীন। চলতি বছরের ১৬ এপ্রিল খালেদা জিয়ার জামিন চেয়ে তার আইনজীবীরা আবেদন করেন।

আদালতে বিলম্বে শুনানির দিন ধার্য থাকায় তিনটি মামলায় জামিন আবেদন দায়েরের জন্য রবিবার সকালে হাইকোর্টে অনুমতি চান খালেদার আইনজীবীরা। অনুমতি পেয়ে জামিনের আবেদন দাখিল করেন তারা।

Shares