আজ শুক্রবার , ১৬ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

খুলনায় বাঘের হামলায় ‘নিহত’ সিরাজুল ফিরলেন জীবিত হালুয়াঘাটে অবৈধভাবে মাটি উত্তোলনে ৫০ হাজার টাকা অর্থদন্ড খালেদার রোগ মুক্তিতে হালুয়াঘাটে বিএনপি’র দোয়া অসুস্থ্য স্ত্রীকে দেখতে হাসপাতালে আসার সময় ট্রাকচাপায় এক প্রকৌশলী নিহত খালেদা জিয়ার রোগ মুক্তি কামনায় হালুয়াঘাটে বিএনপি’র দোয়া খালেদা জিয়া করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হালুয়াঘাটে হেফাজত নেতা মাওঃ মামুনুলকে নিয়ে তর্ক! শিক্ষকের চোখে ঘুষি হালুয়াঘাটে লকডাউনের প্রথম দিনে ৩ জনকে অর্থদন্ড বাউফলে ৭ জনের অর্থদন্ড বরগুনায় আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থীর উপর হামলা, আহত-১০ ট্রাকে চাপ দিয়ে ছেঁচড়িয়ে নিয়ে যায় ‘অনিক’কে! আরও এক মর্মান্তিক মৃত্যু বাউফলে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদ্যাপিত ইউপি নির্বাচন বাউফলে ২ চেয়ারম্যান ও ১ মেম্বার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত বাউফলে ২ দিন ব্যাপী উন্নয়ন মেলা শুরু হালুয়াঘাটে মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভে শ্রদ্ধাঞ্জলি

একজন শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান প্রধান ও শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক কাজী নজরুল ইসলাম

প্রকাশিতঃ ৪:৪০ অপরাহ্ণ | জুলাই ২৫, ২০১৮ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ২১১ বার

স্টাফ রিপোর্টারঃ শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান প্রধান হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন বরুয়াজানী হাসান উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক একেএম কাজী নজরুল ইসলাম। পাশাপাশি শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক হিসেবেও ইতিপূর্বে পুরস্কৃত হয়েছেন বলে জানা গেছে। সুত্রে জানা যায়, প্রধান শিক্ষক কাজী নজরুল ইসলাম গত ২৭ জুন মঙ্গলবার জাতীয় শিক্ষাসপ্তাহ ২০১৮ উপলক্ষে নালিতাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার তরফদার সোহেল রহমান শিক্ষাসপ্তাহ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে নালিতাবাড়ী উপজেলার শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান প্রধান হিসেবে কাজী নজরুল ইসলামের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। জানা যায়, এর আগে ২০১৭ সালেও উক্ত বরুয়াজানী উচ্চ বিদ্যালয় উপজেলায় শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় হিসেবে পুরস্কৃত হন। গতকাল এক সাক্ষাৎকারে উক্ত প্রধান শিক্ষকের সফলতার নেপথ্যে জানতে চাইলে তিনি একজন আদর্শিক ও দায়িত্বশীল প্রধান শিক্ষকের ভূমিকার কথা উল্লেখ করেন। প্রধান শিক্ষক হিসেবে এ কে এম কাজী নজরুল ইসলাম গত ২০১১ সালের ৫ মে তারিখে দায়িত্ব বুঝে নেন। তিনি জানান, এরপর থেকেই লেগেছে বিদ্যালয়টিতে উন্নয়নের ছোঁয়া। প্রধান শিক্ষক হিসেবেও রয়েছে আলাদা কিছু বৈশিষ্ট্য। তারসাথে কথা বলে জানা যায়, সকাল ৯টায় প্রতিদিন বিদ্যালয়ে আসেন। নিজেই বিদ্যালয়ের সকল কিছু তদারকি করে থাকেন। ভিজিট করেন নিজেই। অনেক সময় নিজেই ময়লা পরীস্কার করে থাকেন। নিয়মিত ক্লাস মনিটরিং করা, বাগান করা, শিক্ষার্থীদের জন্যে খেলাধুলার ব্যবস্থা করা, প্রতিটি জাতীয় প্রোগ্রামে শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহণের ব্যবস্থা করাসহ সকল দায়িত্বগুলো পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পালন করে থাকেন। তিনি জানান, জাতীয়করনের জন্যে ৫ টি প্রতিষ্ঠানের ভিজিট তালিকায় বরুয়াজানী হাসান উচ্চ বিদ্যালয় শীর্ষে রয়েছে। বিদ্যালয়টি ১৯৬৭ সালে স্থাপিত। ভাল পাঠদান, অতুলনীয় ফলাফল, বিদ্যালয়ের ভৌত অবকাঠামো, দক্ষ শিক্ষক মন্ডলীসহ সব মিলিয়ে নজর কেঁড়েছে সকলের। শহরের বাহির এলাকায় একমাত্র সুনাম কুঁড়িয়েছে যা। ৮ শত শিক্ষার্থী। বিজ্ঞান, মানবিক ও ব্যবসায় শাখা নিয়ে ত্রিধারায় চলে শিক্ষা কার্যক্রম। গত জে এস সিতে ৯৪.৭৭%, এসএসসিতে ৯৭.৮% ফলাফল অর্জন করে। এ+ ৯ জন, ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি ৩ জন। অন্যান্য বছরের ফলাফলও ভালো। প্রধান শিক্ষক জানান, জাতীয়করনের জন্যে একমাত্র দাবীদার এই বিদ্যালয়টির।###

Shares