আজ বুধবার , ২৭শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

নালিতাবাড়ীতে শিক্ষক নেতার উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন নালিতাবাড়ীতে শিক্ষক নেতার উপর সন্ত্রাসী হামলার বিচারের দাবীতে আজ মানববন্ধন হালুয়াঘাটের শিমুলকুচি গ্রামে কামাল’র কুলখানি অনুষ্ঠিত হালুয়াঘাটে বৃদ্ধকে নির্যাতনের ঘটনায় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ হালুয়াঘাটের ট্রলি উল্টে দুই বন্দর শ্রমিকের মৃত্যু, আহত ৬ মাছ ধরার জালে ঢিল ছোড়ায় খুন হন শিশু শিক্ষার্থী সুমন হালুয়াঘাটে ১ম শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে কুপিয়ে খুন এমপি’র কাছে নালিশ করায় বৃদ্ধকে পিটিয়েছে চেয়ারম্যান হালুয়াঘাটে প্রতারিত শত শত কৃষক বাউফলে মাছের পোনা অবমুক্তকরণ বাউফল উপজেলা ও পৌর সেচ্ছাসেবক দলের আহব্বায়ক কমিটি ঘোষণা বাউফলে ইউএনও’র বিদায়ী সংবর্ধনা নালিতাবাড়ীতে জেলা শিক্ষা অফিসারের বিদ্যালয় পরিদর্শন বাউফলে বিএনপি’র ৪৩ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত বাউফলে ছেলের বিচার চেয়ে বাবা মায়ের সাংবাদিক সম্মেলন

‘টানা ২ দিন ঘুমাতে দেয় নি পুলিশ’

প্রকাশিতঃ ৫:৫৭ অপরাহ্ণ | জুলাই ১৮, ২০১৮ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ২০৬ বার

ডেস্ক রিপোর্টঃ মিয়ানমারে আটক দুই সাংবাদিক তাদের ওপর চালানো পুলিশি নির্মমতার বর্ণনা দিলেন। বললেন, তাদেরকে টানা দু’দিনেরও বেশি সময় ঘুমাতে দেয়া হয় নি। গোপন এক বন্দিশালায় নেয়ার সময় তাদের মাথা কালো কাপড়ে ঢেলে দেয়া হয়েছিল। তারপর যেখানে নিয়ে যাওয়া হয় সেখানে তাদেরকে বাইরের দুনিয়ার সঙ্গে দু’সপ্তাহ বিচ্ছিন্ন রাখা হয়। উল্লেখ্য, রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংসতা চালানোর সময় এ নিয়ে রিপোর্ট করছিলেন বার্তা সংস্থা রয়টার্সের সাংবাদিক ওয়া লোন (৩২) ও কাইওয়া সোয়ে ও (২৮)। তাদের কাছে গোপন ডকুমেন্ট আছে এমন অভিযোগে পুলিশ তাদের গ্রেপ্তার করে।

কিন্তু ওই দুই সাংবাদিক এমন অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছেন। এ বিষয়ে ইয়াঙ্গুনে একটি আদালতে দু’দিন নিজের বক্তব্য উপস্থাপন করেন ওয়া লোন। তিনি বলেন, তাকে গ্রেপ্তার করতে পুলিশ ফাঁদ পাতে। তাদের বিরুদ্ধে গোপন ডকুমেন্ট থাকার যে অভিযোগ পুলিশ করছে সে বিষয়ে তিনি বলেন, পুরো জিজ্ঞাসাবাদের সময় তারা আমার কাছে থাকা গোপন ডকুমেন্টের বিষয়ে কিছু জিজ্ঞেস করে নি। উল্টো তারা প্রশ্ন করেছে রাখাইনের মংডুতে রিপোর্ট করা নিয়ে। সে বিষয়ে তারা তদন্ত করেছে। তিনি আদালতকে বলেছেন, এমন অবস্থায় অনেক ঘন্টা আমাকে ঘুমাতে দেয়া হয় নি। তারা আমাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতেই থাকে। এতে আমি নিঃশ্বেষিত হয়ে গিয়েছিলাম। এই দুই সাংবাদিককে গ্রেপ্তারের সময় তারা রাখাইনের ইন ডিন গ্রামে ১০ জন রোহিঙ্গা পুরুষ ও বালককে হত্যার বিষয়ে অনুসন্ধান করছিলেন। ওই ১০ জনকে হত্যা করা হয় মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নৃশংস অভিযানের সময়। সেনাবাহিনীর নৃশংসতায় ৭ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা গত বছর পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়। জাতিসংঘ একে জাতি নিধন হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। রয়টার্সের এ দুই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তাতে তাদের সর্বোচ্চ ১৪ বছরের জেল হতে পারে। তবে তারা নিজেদেরকে নির্দোষ দাবি করেছেন।

Shares