আজ শুক্রবার , ২৫শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

বাউফলে ৫ হাজার মিটার অবৈধ বাঁধা জাল জব্দ ৫ বছর পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সিজারিয়ান কার্যক্রম শুরু জনগনের সেবক হতে চাই- অধ্যক্ষ পিকু জনগনের সেবক হতে চাই- অধ্যক্ষ পিকু হালুয়াঘাটে আশার আলো’র নির্বাচন! কাঞ্চন সভাপতি, আলী হোসেন সম্পাদক ব্যক্তিগত কারণে আত্মগোপনে ছিলেন ত্ব-হা: ডিবি হালুয়াঘাটে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান উপলক্ষে প্রেস ব্রিফিং হালুয়াঘাটে বাসের চাপায় পিষ্ট হয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী নিহত একদিনে আরও ৬০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩৯৫৬ ময়মনসিংহে নিখোঁজ শিক্ষার্থীর লাশ পাওয়া গেল টয়লেটের ট্যাংকে বাউফলে ইউএনও’র হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ে বন্ধ ময়মনসিংহের ত্রিশালে সাংবাদিক এনামুল ফাউন্ডেশনের ইফতার ও দোয়া মাহফিল মা দিবসের শুভেচ্ছা ময়মনসিংহের এিশালে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি ও দীর্ঘায়ু কামনায় ইফতার হালুয়াঘাটে আরব আলী ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ৬ শত মানুষ পেল ঈদ উপহার

পাচার হওয়ার আগে পশ্চিমবঙ্গে উদ্ধার তিন বাংলাদেশি নারী

প্রকাশিতঃ ১১:০৫ অপরাহ্ণ | জুলাই ০৩, ২০১৮ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ২১৪ বার

সীমান্তবার্তা ডেস্ক :পাচার হওয়ার আগেই পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের তৎপরতায় উদ্ধার করা হয়েছে বাংলাদেশি ৩ নারী। গতকাল সোমবার পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগণা থেকে তাদের উদ্ধার করা হয়। বাংলাদেশের এই তিন নারীকে কাজ পাইয়ে দেবার কথা বলে সীমান্ত পার করে ভারতের এক দালালের হাতে তুলে দেয়া হয়। তবে নারী তিনজনকে নিয়ে উত্তর ২৪ পরগণার গাইঘাটায় আসার পর সেই দালাল হঠাৎ উধাও হয়ে যায়। এরপরেই সেই তিন নারীকে ইতস্তত ঘুরতে দেখে স্থানীয়দের সন্দেহ হলে তারা পুলিশে খবর দেন। পুলিশ তৎপরতার সঙ্গে তাদের উদ্ধার করে।

উদ্ধারকৃত তিন নারীর হলেন  নার্গিস কাজী (২০), সোনিয়া খাতুন (২১) এবং রেশমা বেগম (২৭)। তারা জানিয়েছেন, বাংলাদেশের এক ব্যক্তি ভারতে কাজের প্রতিশ্রুতি দিয়ে চোরাইপথে তাদের ভারতে নিয়ে যান। পশ্চিমবঙ্গে নেয়ার পর ওই ব্যক্তি অন্য এক ব্যক্তির হাতে তাদের তুলে দেন। এরপর এই এলাকায় আসার পর ওই ব্যক্তি হঠাৎই উধাও হয়ে যান। গতকালই তিন জনকে  আদালতে তোলা হলে তাদের হোমে পাঠানো হয়। বাংলাদেশ থেকে দরিদ্র পরিবারের নারীদের কাজের প্রলোভন দেখিয়ে ভারতে নিয়ে যাবার জন্য একটি চক্র সক্রিয় রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। পুলিশ আরো জানিয়েছে, এই সব নারীদের ভারতের বিভিন্ন জায়গায় নিষিদ্ধ পল্লীতে বিক্রি করে দেয়া হয়। একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার মতে, প্রতিবছর বাংলাদেশ থেকে কয়েক হাজার কিশোরী ও নারী পাচার হয়ে ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে বিক্রি হয়ে যাচ্ছে।

Shares