আজ সোমবার , ২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

গরীবের আশার বাতিঘর হাজী মোশারফ হালুয়াঘাটে পল্লী বিদ্যুতের খুঁটি পুঁততে গিয়ে মৃত্যু-১, আহত-১ জাতীয় ভাবে”স্বপ্নজয়ী মা” নির্বাচিত হলেন জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জের অবিরণ নেছা ৬১০৮ ভোটের ব্যবধানে হামিদ বিজয়ী। শেখ রাসেল ও মনোয়ারা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হালুয়াঘাট উপজেলা পরিষদ নির্বাচনঃ প্রবীণে প্রবীণে লড়াই এম্বুলেন্সে করে মাদক পাচারকালে ২৪০ বোতল ভারতীয় মদসহ একজন আটক এমপি মাহমুদুল হক সায়েমকে সি.আই.পি শামিমের সংবর্ধনা হালুয়াঘাটে ঈদে বাড়ি ফেরার পথে লাশ হল স্বামীসহ অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী হালুয়াঘাটের স্থলবন্দর দিয়ে ২৭টি পণ্যের আমদানী রপ্তানীর পরিকল্পনা-এমপি সায়েম হালুয়াঘাটে ২৭ হাজার দুস্থ অসহায় পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার ১৩ বছর পর পদত্যাগ করলেন ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হালুয়াঘাটে ফেইসবুক গ্রুপে কোরআন তেলাওয়াত ও ইসলামী সংগীত প্রতিযোগিতা। পুরস্কার বিতরণ ‘কৃষ্ণনগরের কৃষ্ণকেশীর ‘বেহিসেবি রঙ.. হিমাদ্রিশেখর সরকার হালুয়াঘাট থেকে ফুলপুর পর্যন্ত চার লেনের রাস্তা নির্মাণসহ সড়ানো হচ্ছে অস্থায়ী বাস কাউন্টার জনগণের অধিকার আদায় না হওয়া পর্যন্ত বিএনপি রাজপথে থাকবে-প্রিন্স

পরকীয়ায় ভেঙ্গে যাচ্ছে সোনার সংসারগুলো!

প্রকাশিতঃ ৫:৫৭ অপরাহ্ণ | জুলাই ০২, ২০১৮ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ৪৩৩ বার

মোমিন তালুকদারঃ নারী বা পুরুষ বিবাহবহির্ভূত সম্পর্ক বা পরকীয়ায় জড়িয়ে ভেঙ্গে যাচ্ছে সাজানো গোছানো সোনার সংসার। পরকীয়া, সময়ের আলোচিত এক সমস্যার প্রতিচ্ছবি। যার প্রভাবে সংসার, সন্তান আর স্বামীকে বাদ দিয়ে ভালবাসার মানুষের হাত ধরে পাড়ি দিচ্ছে দূর অজানায়। সে জানে না এটার শেষ পরিণতি কতটা ভয়ংকর হতে পারে।

ভালবাসার মানুষের হাত ধরে চলে যাওয়াকে-ই ভাল থাকার অবলম্বন ভেবে নেয়। পরকীয়ার প্রভাবে দেশে প্রতিদিন অনেক সংসার ভেঙ্গে চলেছে। শাশুড়ি জামায়ের সাথে পালিয়ে যাচ্ছে। স্ত্রী স্বামীকে বাদ দিয়ে তার গোপন ভালবাসার মানুষের হাত ধরে পালিয়ে যাচ্ছে। এমন আরও অনেক কিছু। যেটা পুরোটাই পরকীয়ার প্রভাবে হচ্ছে।

অন্যদিকে, স্টার জলসা আর জি বাংলার প্রভাব পড়েছে প্রতিটি ঘরে ঘরে। যেখানে পরকীয়ার প্রতিচ্ছবি ভেসে ওঠে প্রতিটা পর্বে পর্বে। শুধু অপেক্ষায় থাকে পরবর্তী পরকীয়ার কৌশল অবলম্বন করার জন্য। ফলে ভেঙ্গে যাচ্ছে সংসার।

পরকীয়ার জের হিসাবে আবার কখনো কেউ বেছে নিচ্ছেন আত্নহত্যার পথ। অন্যদিকে, ঘরের স্ত্রী, সন্তান, এমনি কি শ্বশুর শাশুড়িও স্টার জলসা থেকে শিক্ষা নিয়ে তার প্রয়োগ করছেন বাস্তব জীবনেও। ফলে ভাঙ্গনের কবলে পড়ছে অনেক নব দম্পত্তির স্বপ্নের সাজানো সংসার। যেটা হয়তো শুরু হওয়ার কথা ছিল অনেকটাই স্বাভাবিক নিয়মে কিন্তু নিমিষেই সব সে সর্ম্পক্য বিচ্ছেদের দাঁড় প্রান্তে গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে।

আবার, পরকীয়ায় থেমে নেই দুই বা তিন সন্তানের জনক বা জননীরা। স্বামীর অগোচরে স্ত্রী আবার কখনো স্ত্রীর অগোচরে স্বামী জড়িয়ে পড়ছেন পরকীয়ায়। একই সঙ্গে কুটকৌশলে পড়ে ভেঙ্গে চুরমার নব দম্পত্তির সংসারও। সমাজের ঘটে চলা এমন বাস্তবতার সম্মূখীন অধিকাংশ পরিবার। তবুও যেন ঘরে ঘরে থেমে নেই স্টার জলসা আর জি বাংলার দর্শক। দিনের আলোতে বা সন্ধ্যায় পরিবার নিয়ে স্টার জলসা আর জি বাংলা দেখা একটা ফ্যাশানে পরিণত হয়েছে। এখান থেকে শিখছে পরিবারের ছেলে মেয়েরাও। আর তার প্রভাব পড়ছে বাস্তব জীবনেও। ফলে সৃষ্টি সমস্যাগুলোর সমাধান হয় অনেকটাই বিচ্ছেদ আর বিরহের মধ্যে দিয়ে।

প্রতিদিন কোথাও না কোথাও স্টার জলসা আর জি বাংলার প্রভাবে স্বামী স্ত্রীকে বা স্ত্রী স্বামীকে ছেড়ে যাওয়ার ঘটনাও ঘটছে। নিজের সন্তান ফেলে স্ত্রী বা স্বামী পরকীয়ায় পাড়ি দিচ্ছে অজানায়। এমন ঘটনাও কম নয়।

সাতক্ষীরা জর্জকোর্টের আইনজীবী ও সচেতন নাগরিক কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট ফাইমুল হক কিসলু বলেন, আমাদের সমাজে স্বামী, স্ত্রী বা সন্তানরা স্টার জলসা, জি বাংলার জন্য দিনের ও রাতের অনেকাংশ সময় ব্যয় করে। এখান থেকে নেতিবাচক শিক্ষা নিয়ে বাস্তব জীবনে তার প্রয়োগ ঘটায় ফলে ঘরে ঘরে অশান্তি বেঁধে যায়। এক পর্যায়ে ভেঙ্গে যায় সংসারটি। প্রত্যকেরই বিনোদন প্রয়োজন তবে সেটাকে কেউ বিরুপভাবে গ্রহণ করলে তার দায় কে নেবে। পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ছে স্ত্রী-স্বামীরা। কখনো সন্তানদের দূরে ঠেলে প্রেমিকের সঙ্গে অন্যত্র পাড়ি জমাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, প্রতিনিয়তই আদালতে নিত্যু নতুন পারিবারিক মামলা যুক্ত হচ্ছে। যার অধিকাংশই ঘটেছে স্টার জলসা আর জি বাংলার প্রভাবে। তবে আমাদের দেশের প্রচলিত আইনে ধারা না থাকায় যৌতুক বা স্ত্রী নির্যাতন মামলা হিসেবে নথিভূক্ত করতে হয়। আমরা চাই সৃজনশীল সংস্কৃতি চালু হোক আর অপসংস্কৃতি দূর হোক।

Shares