আজ শনিবার , ৮ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৫শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

শিরোনাম

হালুয়াঘাটে আরব আলী ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ৬ শত মানুষ পেল ঈদ উপহার হালুয়াঘাটে রাস্তার দাবিতে মানববন্ধন মর্ডান স্পোটিং ক্লাবের দোয়া ও ইফতার জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ নেতা কায়েসের ঈদ উপহার সচেতনতা মুলক স্টিকার ও মাস্ক বিতরণ করলো জনপ্রিয় সেচ্ছাসেবী সংঘঠন ত্রিশাল হেল্পলাইন আজ শফিকুল ইসলাম ভাইয়ের মৃত্যুবার্ষিকী খালেদা জিয়ার রোগ মুক্তি কামনায় ত্রিশাল ছাত্রদলের পক্ষ থেকে ইফতার বিতরণ হালুয়াঘাটে কৃষকের ধান কাটলেন এমপি হালুয়াঘাটে কর্মহীন মানুষের মাঝে রুবেলে’র খাদ্য সামগ্রী বিতরণ! করোনাঃ মৃত্যুর মিছিলে ১৫৪ চিকিৎসক বাউফলে ডায়রিয়া আক্রান্তদের মাঝে বিনামূল্যে স্যালাইন বিতরণ বাউফলে টাকা চুরি’র ঘটনাকে কেন্দ্র করে এক যুবককে কুপিয়ে জখম মৃত্যুপুরী ভারত শ্মশানে জায়গা না থাকায় গণচিতা ভারতে লুকানো হচ্ছে কোভিডে মৃতের সংখ্যা কমতে শুরু করেছে মৃত্যু ও শনাক্ত সংখ্যা

ঝালকাঠিতে সালাউদ্দিনের সাপের খামার! কৌতুহলি মানুষের ভিড়

প্রকাশিতঃ ২:২৬ অপরাহ্ণ | জুন ৩০, ২০১৮ । এই নিউজটি পড়া হয়েছেঃ ২০৯ বার

ঝালকাঠি সংবাদদাতাঃ জেলা ঝালকাঠির রাজাপুরে নিবিড় পরিচর্যায় গড়ে উঠেছে একটি বিষধর সাপের খামার। সরকার বেসরকারি উদ্যোগে সাপের বাণিজ্যিক খামার স্থাপনের জন্য ২০টি শর্ত দিয়ে ২০০৮ সালের নভেম্বরে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করলেও কষ্টে উপার্জিত অর্থ বিনিয়োগ করে খামার মালিক সালাউদ্দিন শুরু করতে পারছেন না বিষ উৎপাদনের বাণিজ্যিক কার্যক্রম। প্রতি মাসে কোটি টাকার বিষ উৎপাদনে সক্ষম ওই খামারটি বিষ উৎপাদনের জন্য নিবন্ধনের আবেদন করে এখনও অনুমোদনের অপেক্ষায়। বিস্ময়কর ওই খামারটি দেখতে কৌতূহলি মানুষ প্রতিদিন ভিড় করছেন খামারির বাড়িতে। দেখছেন বিভিন্ন প্রজাতির বিষধর সাপ, শুনছেন সাপ নিয়ে অজানা তথ্য ও সম্ভাবনার কথা।
রাজাপুর উপজেলার সদর ইউনিয়নের চর রাজাপুর গ্রামের সালাউদ্দিন মৃধা নামের এই তরুণ তার নিজ বাড়িতেই নিবিড় পরিচর্যায় গড়ে তুলেছেন বিষধর এই সাপের খামার।

খামারের নাম দিয়েছেন ‘রাজাপুর কোবরা ভেনম’। দেশি কোবরা, শঙ্খীনি জাতের সাপ নিয়েই গড়ে তুলেছেন খামারটি। গত বছর ৫টি সাপ নিয়ে খামারের কার্যক্রম শুরু করলেও এখন প্রচুর সাপ আছে তার খামারে। সাপের বিষ রপ্তানির উদ্যোগ নেয়ার কথা সরকার ঘোষণা করার পর অনুপ্রাণিত হয়ে সালাউদ্দিন খামারটি গড়ে তোলেন। খামার থেকে প্রতি মাসে কোটি টাকার বিষ উৎপাদন করা সম্ভব বলে তরুণ উদ্যোক্তা এই প্রতিবেদককে জানিয়েছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত বিষ উৎপাদনের সরকারি অনুমোদন না পাওয়ায় বাণিজ্যিক কার্যক্রমে যেতে পারছেন না তিনি। সালাউদ্দিন আরো জানান, প্রথমদিকে গ্রামবাসী তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করেছে। সাপুড়ে, বেদে বলে ডাকতো। এমন কথাও শুনতে হয়েছে- ‘শেষ পর্যন্ত সাপের ব্যবসা করতে হলো’! সেই সঙ্গে ছিল কুসংস্কারের ভয়াল থাবা। কিন্তু এখন দেখেন সবাই তার সঙ্গে। তাই সব সময়ই খামারের নিকটে থাকে উৎসুক জনতার ভিড়। এলাকায় এখন আর কেউ সাপ মারে না। কারও বাড়িতে সাপ ধরা পড়লে তাকে খবর দেয়। তিনি গিয়ে সাপটি উদ্ধার করে খামারে নিয়ে আসেন। গ্রামে কারো বাড়িতে সাপ আছে- এমন সংবাদ পেলেই ছুটে যান তিনি ও তার সঙ্গীরা। পরে সেই বাড়ির বাসিন্দাদের সহযোগিতায় তা সংগ্রহ করে নিয়ে আসেন খামারে। মূলত মানুষের হাত থেকে বিপন্ন সাপকে বাঁচাতে আপ্রাণ চেষ্টা করছেন তিনি। ফলে তিনি পরিচিতি পেয়েছেন ‘সর্পপ্রেমী মানুষ’ হিসেবে। এদিকে, প্রতিদিন যারাই আসছেন সকলেই খামার দেখে মুগ্ধ হয়েছেন। নানা দিক জেনে শুনে বাস্তবে দেখে সাপ নিয়ে আতংক, কুসংস্কার, ভ্রান্ত ধারনার অনেকটাই কেটে গেছে তাদের। তারাও দাবী জানাচ্ছেন সরকারি সহযোগিতার। খামারে আসে পাশে রোপণ করা হয়েছে সাপের খাদ্য সরবরাহের জন্য কলাগাছ। এর মাঝেই বাস করছে সাপের প্রধান খাদ্য ব্যাঙ। পোষা হচ্ছে কোয়েল পাখি। কোয়েলের ডিম সাপের খাবার হিসেবে রাখা হয়।

Shares